mother language day pic

একুশে ফেব্রুয়ারি ২০২২,আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস 2022- ইতিহাস ও উৎযাপন

একুশে ফেব্রুয়ারি বাংলাদেশসহ পশ্চিমবঙ্গ তথা সমস্ত বাংলা ভাষা ব্যবহারকারী জনগণের গৌরবোজ্জ্বল একটি দিন।এই দিনটি শহীদ দিবস ও আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস হিসেবে পরিচিতি লাভ করেছে। বাঙালি জাতির জনগণের ভাষা আন্দোলনের গৌরব উজ্জ্বল নয় স্মৃতি বিজড়িত একটি দিন হিসেবে চিহ্নিত হয়ে আছে বাংলাদেশের প্রতিটি মানুষের হৃদয়ে। 1952 সালের এই দিনে (৮ ই ফাল্গুন, ১৩৫৮,বৃহস্পতিবার) বাংলাকে পূর্ব পাকিস্তানের অন্যতম রাষ্ট্রভাষা করার দাবিতে আন্দোলনরত ছাত্রদের ওপর পুলিশের গুলিবর্ষণে অনেক তরুণ শহীদ হন।তাই এই দিনটি শহীদ দিবস হিসাবে ঘোষণা করা হয়েছে। এছাড়া 5 ই আগস্ট 2010 খ্রিস্টাব্দে জাতিসংঘ কর্তৃক গৃহীত সিদ্ধান্ত মোতাবেক প্রতিবছর একুশে ফেব্রুয়ারি বিশ্বব্যাপী আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস পালন করা হয়।

আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস 2022

আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস হল ভাষাগত ও সাংস্কৃতিক বৈচিত্রের সচেতনতা বৃদ্ধির জন্য এবং বহু ভাষার প্রচারের জন্য একুশে ফেব্রুয়ারি অনুষ্ঠিত একটি বিশ্বব্যাপী বার্ষিকী উদযাপন পালন করার লক্ষে। 17 ই নভেম্বর 1999 সালে ইউনেস্কো কর্তৃক প্রথম ঘোষণা করা হয়। 2002 সালে জাতিসংঘের প্রস্তাব ৫৬/২৬২  গৃহীত হওয়ার মাধ্যমে জাতিসংঘের সাধারণ পরিষদ কর্তৃক আনুষ্ঠানিকভাবে স্বীকৃত হয়।মাতৃভাষা দিবস একটি বৃহত্তর উদ্যোগের অংশ 2007 তারিখে জাতিসংঘের সাধারণ পরিষদ কর্তৃক গৃহীত বিশ্বের জনগণের দ্বারা ব্যবহৃত সকল ভাষার সংরক্ষন ও সুরক্ষা. 2008 কে আন্তর্জাতিক ভাষা হিসেবে প্রতিষ্ঠা করেছে. আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস উদযাপনের ধারণা ছিল বাংলাদেশের উদ্যোগে. বাংলাদেশ একুশে ফেব্রুয়ারি সেইদিনের বার্ষিক যখন বাংলাদেশের তৎকালীন পূর্ব পাকিস্তান জনগণ বাংলা ভাষার স্বীকৃতির জন্য লড়াই করেছিল.এছাড়া এটি ভারতের পশ্চিমবঙ্গে দিবসটি যথাযোগ্য মর্যাদায় পালিত হয়. 

মহান একুশে ফেব্রুয়ারি আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস পৃথিবীর ইতিহাসে অন্যতম একটি দিবস হিসেবে সুপরিচিত হয়ে পৃথিবীর প্রতিটি মানুষের অন্তরের হৃদয়ে গাঁথা রয়েছে  উক্ত দিবস।এই দিবস বাঙালি জাতির অন্যতম একটি গৌরবের দিন যেদিন বাংলাদেশের রাষ্ট্রভাষা বাংলা ভাষা করার দাবিতে রাস্তায় মিছিল এর মধ্যে পাকিস্তানি  হানাদার বাহিনীদের গুলিতে অসংখ্য বাঙালি বীরেরা নিবেদিতভাবে প্রাণ বিসর্জন দিয়ে গেছেন।

এই ভাষা অর্জনের জন্য। যাদের মধ্যে অন্যতম ব্যক্তিবর্গ তাদের নাম পৃথিবীর প্রতিটি মানুষের অন্তরে স্বর্ণাক্ষরে লেখা রয়েছে। তারা হচ্ছেন সালাম, বরকত, রফিক, জব্বার, সফিক আরো অসংখ্য বীরদের রক্তের বিনিময়ে আমাদের এই ভাষা অমর একুশে ফেব্রুয়ারি অর্জন করা সম্ভব হয়েছে।

21 february9

তাইতো একটি গান বাঙ্গালীদের মনের মধ্যে এখনো যন্ত্রণার সেই কালো রাত্রির অধ্যায় বিভিন্নভাবে আমাদেরকে মনে করিয়ে দেয় সেই সব দিনের ভয়ঙ্কর চিত্র গুলি।

অর্থাৎ আমার ভাইয়ের রক্তে রাঙানো একুশে ফেব্রুয়ারী, আমি কি ভুলিতে পারি ?সেই দিনের সেই যন্ত্রণা টুকু আজও আমাদের ইতিহাস বলে দেয় সর্বোচ্চ বিসর্জন দিয়ে হলেও বাঙালিরা তাদের জয়ের স্বপ্ন ছিনিয়ে আনতে একবিন্দু কার্পণ্যবদ করেনা সকল ক্ষেত্রে।

21 february3

অমর একুশের শুভেচ্ছা

অমর একুশের শুভেচ্ছা জানাতে বিশেষ দিনটি যখন আমাদের মধ্যে আবির্ভূত হয় ঠিক তখন প্রতিটি মানুষের অন্তরের অন্তরস্থল থেকে অমর একুশের শুভেচ্ছা জানিয়ে বিনিময় করে থাকি আমাদের সেই ইতিহাসের কালো অধ্যায়ের দিন গুলি পর্যালোচনা করার ক্ষেত্রে।

একুশের শুভেচ্ছা একুশে ফেব্রুয়ারি দিনটি আসলে আমাদের কাছেঅন্যরকম এক অনুভূতি যোগায় এবং অন্যরকম এক উদ্দীপনা ভিতরে কাজ করে থাকে। যার ভাষা একমাত্র মনের মধ্যেই অবস্থান করে মুখ খুলে প্রকাশ করা সম্ভব হয় না।

21 february8

21 february4

21 february7

অমর একুশের ছন্দ

 আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস উপলক্ষে পৃথিবীর প্রতিটি মানুষ ওই দিনটিতে তাদের হৃদয়ের কোন থেকে একটি অনুভূতিমূলক ছন্দ বাণী পৃথিবীর প্রতিটি মানুষের দ্বারে দ্বারে পৌছে দিতে মনে চায় এবং ওই দিনটি ঘিরে প্রধান ভূমিকা পালন করে থাকে অমর একুশের ছন্দ বাণী কবিতা।

21 february2

21 february6

21 february5

আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবসের মূল প্রতিপাদ্য বিষয়

 আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবসের মূল প্রতিপাদ্য বিষয় হচ্ছে পৃথিবীতে কখনো জোর করে অন্যায় করে অবিচার করে কোন দেশ তথা দেশের কোন সমাজ ব্যবস্থা  শাসন করে পরিচালনা করা সম্ভব হয় না।সে ক্ষেত্রে সপ্তাহের একদিন জয় হবে তার নির্ধারণ বাস্তব প্রমাণ বাঙ্গালীদের অমর একুশে ফেব্রুয়ারি ইতিহাসের সেই কালো অধ্যায়ের দিনগুলি।

যার বিনিময়ে আমরা আমাদের গৌরবের বাংলা ভাষা অর্জন করতে পেরেছি এবং বিনিময় জাতিসংঘ কর্তৃক আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস হিসেবে ঘোষণা সুফল বাঙালি জাতি পেয়েছে।জাতিসংঘের ঘোষণা অনুযায়ী সারা পৃথিবীব্যাপী আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস পালন করা হয় এবং এর থেকে প্রমাণিত হয় সত্যের পথে যুদ্ধ করে জীবনের বিনিময়ে হলেও সত্যের জয় গান ছিনিয়ে আনা সম্ভব প্রতিটি ক্ষেত্রে।

21 february10

অমর একুশের অমর বাণী

 একুশে ফেব্রুয়ারি আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস উপলক্ষে সবচাইতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে থাকে ফিরে আসা আমাদের সেই অমর বাণী গুলো। প্রতিটি মানুষের মাঝে যখন আবৃত্তি করে শোনান হয় ঠিক তখন আমরা পৃথিবীর প্রতিটি মানুষ যেন ওই দিনটির বাস্তব প্রতিচ্ছবি মনে করিয়ে দিয়ে আমাদের হৃদয়ের সকল হারানোর যন্ত্রণা আবার পুনরায় উদযাপিত হয়ে আবির্ভূত হতে থাকে প্রতিটি মানুষের হৃদয়ে। 

21 february1

আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস হল একটি বিশ্বব্যাপী বার্ষিক উদযাপন যা 21শে ফেব্রুয়ারি ভাষাগত ও সাংস্কৃতিক বৈচিত্র্যের সচেতনতা এবং বহুভাষিকতার প্রচারের জন্য অনুষ্ঠিত হয়। 17 নভেম্বর 1999 তারিখে ইউনেস্কো কর্তৃক প্রথম ঘোষিত, এটি জাতিসংঘের সাধারণ পরিষদ দ্বারা 2002 সালে জাতিসংঘের রেজুলেশন 56/262 গ্রহণের মাধ্যমে আনুষ্ঠানিকভাবে স্বীকৃত হয়। মাতৃভাষা দিবস একটি ব্যাপক উদ্যোগের অংশ।

21 february

“বিশ্বের জনগণের দ্বারা ব্যবহৃত সমস্ত ভাষার সুরক্ষা এবং সুরক্ষা” জাতিসংঘের সাধারণ পরিষদ কর্তৃক 16 মে 2007 তারিখে জাতিসংঘের রেজোলিউশন 61/266-এ গৃহীত হয়,  যা 2008কে আন্তর্জাতিক ভাষার বছর হিসাবেও প্রতিষ্ঠিত করে। আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস উদযাপনের ধারণাটি ছিল বাংলাদেশের একটি উদ্যোগ।বাংলাদেশে, ২১ ফেব্রুয়ারি সেই দিনটির বার্ষিকী হিসেবে চিহ্নিত করা হয় যেদিন বাংলাদেশের (তৎকালীন পূর্ব পাকিস্তান) জনগণ যুদ্ধ করেছিল। বাংলা ভাষার স্বীকৃতির জন্য। এটি ভারতের পশ্চিমবঙ্গেও পালিত হয়।

21 february1

আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস

বিমূর্ত বাইরের স্মৃতিস্তম্ভ, একটি কারাগারের স্মৃতি
শহীদ মিনার (শহীদ স্মৃতিসৌধ) 21 ফেব্রুয়ারি 1952 সালের বাংলা ভাষা আন্দোলনের বিক্ষোভের স্মরণে।
অফিসিয়াল নাম আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস (IMLD)
বিশ্বব্যাপী দ্বারা দেখা
গুরুত্ব সব ভাষার সংরক্ষণ এবং সুরক্ষা প্রচার করে
তারিখ 21 ফেব্রুয়ারি
ফ্রিকোয়েন্সি বার্ষিক

mother language day pic 2

আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবসের ইতিহাস

১৯৫২ সালের ২১ ফেব্রুয়ারি ঢাকায় একটি মিছিল বের হয়।1999 সালে UNESCO কর্তৃক 21শে ফেব্রুয়ারিকে আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস হিসেবে ঘোষণা করা হয়। এটি 21 ফেব্রুয়ারি 2000 সাল থেকে বিশ্বজুড়ে পালিত হয়। ঘোষণাটি বাংলাদেশিদের (তৎকালীন পূর্ব পাকিস্তানিদের) ভাষা আন্দোলনের প্রতি শ্রদ্ধা হিসেবে এসেছিল।

21 february2

1947 সালে যখন পাকিস্তান তৈরি হয়েছিল, তখন এটি ভৌগলিকভাবে দুটি ভাগে বিভক্ত ছিল: পূর্ব পাকিস্তান (বর্তমানে বাংলাদেশ নামে পরিচিত) এবং পশ্চিম পাকিস্তান (বর্তমানে পাকিস্তান নামে পরিচিত)। সংস্কৃতি ও ভাষার দিক থেকে দুটি অংশ একে অপরের থেকে একেবারেই আলাদা ছিল। উভয় অংশই ভারত মাঝখানে আলাদা করে দেয়।

21 february3

1948 সালে, পাকিস্তানের তৎকালীন সরকার উর্দুকে পাকিস্তানের একমাত্র জাতীয় ভাষা ঘোষণা করে, যদিও পূর্ব পাকিস্তান এবং পশ্চিম পাকিস্তানের সংখ্যাগরিষ্ঠ মানুষ বাংলা বা বাংলা ভাষায় কথা বলত। পূর্ব পাকিস্তানের জনগণ প্রতিবাদ করেছিল, কারণ জনসংখ্যার অধিকাংশই পূর্ব পাকিস্তানের এবং তাদের মাতৃভাষা ছিল বাংলা। তিনি উর্দু ছাড়া বাংলাকে অন্তত একটি জাতীয় ভাষা করার চেষ্টা করেছিলেন। ১৯৪৮ সালের ২৩ ফেব্রুয়ারি পাকিস্তানের গণপরিষদে পূর্ব পাকিস্তানের ধীরেন্দ্রনাথ দত্ত প্রথম এই দাবিটি উত্থাপন করেন।

mother language day pic 3

বিক্ষোভকে ধ্বংস করার জন্য, পাকিস্তান সরকার জনসভা ও সমাবেশ নিষিদ্ধ করে। সাধারণ জনগণের সমর্থনে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা বিশাল সমাবেশ ও সভা সমাবেশ করে। 1952 সালের 21 ফেব্রুয়ারি পুলিশ জনসভায় গুলি চালায়। আব্দুস সালাম, আবুল বরকত, রফিক উদ্দিন আহমেদ, আব্দুল জব্বার ও শফিউর রহমান নিহত এবং আরো শতাধিক আহত হন। এটি ইতিহাসে একটি বিরল ঘটনা, যেখানে মানুষ তাদের মাতৃভাষার জন্য তাদের জীবন উৎসর্গ করেছিল।

21 february4

সেই থেকে, বাংলাদেশিরা তাদের একটি দুঃখের দিন হিসেবে আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস উদযাপন করে। তারা তাদের প্রতি গভীর দুঃখ, শ্রদ্ধা ও কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করতে শহীদ মিনার, শহীদদের স্মৃতিতে নির্মিত স্মৃতিস্তম্ভ এবং এর প্রতিলিপি পরিদর্শন করে।

21 february5

আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস বাংলাদেশে একটি জাতীয় ছুটির দিন। কানাডার ভ্যাঙ্কুভারে বসবাসরত বাঙালি রফিকুল ইসলাম ও আবদুস সালাম প্রস্তাবটি দিয়েছেন। তিনি ১৯৯৮ সালের ৯ জানুয়ারি কফি আনানকে একটি চিঠি লিখে আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস ঘোষণা করে বিশ্বের ভাষাগুলোকে বিলুপ্তির হাত থেকে বাঁচাতে পদক্ষেপ নিতে বলেন। ভাষা আন্দোলনের সময় ঢাকায় ১৯৫২ সালের হত্যাকাণ্ডের স্মরণে রফিক ২১ ফেব্রুয়ারি তারিখের প্রস্তাব করেন।

21 february6

ভাষা হল আমাদের বাস্তব ও অধরা ঐতিহ্য সংরক্ষণ ও বিকাশের সবচেয়ে শক্তিশালী মাধ্যম। মাতৃভাষার প্রসারের জন্য সমস্ত পদক্ষেপ শুধুমাত্র ভাষাগত বৈচিত্র্য এবং বহুভাষিক শিক্ষাকে উত্সাহিত করার জন্য নয় বরং বিশ্বব্যাপী ভাষাগত ও সাংস্কৃতিক ঐতিহ্যের পূর্ণ সচেতনতা বিকাশ এবং বোঝাপড়া, সহনশীলতা এবং সংলাপের ভিত্তিতে সংহতিকে অনুপ্রাণিত করার জন্যও কাজ করবে।

mother language day pic 1

—  জাতিসংঘের আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস মাইক্রোসাইট থেকে রফিকুল ইসলামের প্রস্তাবটি বাংলাদেশের সংসদে উত্থাপন করা হয় এবং যথাসময়ে (প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নির্দেশে) বাংলাদেশ সরকার ইউনেস্কোতে একটি আনুষ্ঠানিক প্রস্তাব পেশ করে।

21 february7

ইউনেস্কোর নিয়ন্ত্রক ব্যবস্থার মাধ্যমে প্রস্তাবটি চরানোর প্রক্রিয়া শুরু করেছিলেন ফ্রান্সে বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত এবং ইউনেস্কোর স্থায়ী প্রতিনিধি সৈয়দ মুয়াজ্জাম আলী এবং তার পূর্বসূরি তোজমেল টনি হক, যিনি ইউনেস্কোর তৎকালীন মহাসচিব ফেদেরিকো মায়ারের বিশেষ উপদেষ্টা ছিলেন। গেল।

21 february8

অবশেষে, 17 নভেম্বর 1999 তারিখে, ইউনেস্কোর 30 তম সাধারণ পরিষদ সর্বসম্মতিক্রমে সিদ্ধান্ত নেয় যে “1952 সালে এই দিনে আত্মাহুতি দেওয়া শহীদদের স্মরণে 21 ফেব্রুয়ারিকে সারা বিশ্বে আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস হিসাবে ঘোষণা করা উচিত।

21 february9

সময়

সিডনির অ্যাশফিল্ড পার্কে 19 ফেব্রুয়ারি 2006-এ আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবসের স্মারক উত্সর্গ
কানাডায় IMLD এর স্মৃতি

1952 সালে বাংলা ভাষা আন্দোলন

1955 সালে বাংলাদেশের প্রথম ভাষা আন্দোলন দিবস পালিত হয়

1999 সালে ইউনেস্কো একুশে ফেব্রুয়ারিকে আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস হিসেবে ঘোষণা করে

2000 সালের আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবসের উদ্বোধনী উদযাপন অনুষ্ঠিত হয়

 2002 সালে ভাষাগত বৈচিত্রের ক্ষেত্রে 3000 ভাষা সমন্বিত করে ভাষার ছায়াপথের প্রতিটি শব্দ একটি তারকা হিসেবে চিহ্নিত করা হয়

 2004 সালে শিশু শিক্ষার্থী ইউনূসকে বিশ্বজুড়ে শিশুদের একটি অন্যান্য প্রদর্শনী অন্তর্ভুক্ত ছিল যে প্রক্রিয়ার মাধ্যমে শিশুরা সাক্ষরতা দক্ষতার ব্যবহার  শিখতে  এবং আয়ত্ত করতে পারে

2008 সালে ভাষার আন্তর্জাতিক প্রথম উদযাপিত হয়

 2010 সালের সংস্কৃতির মিলনের জন্য আন্তর্জাতিক বর্ষ উদযাপিত হয়

 2012 সালে মাতৃভাষা নির্দেশনা এবং অন্তর্ভুক্তিমূলক শিক্ষা

2013 সালে বার্ষিক প্রতিবেদন মাতৃভাষা শিক্ষার জন্য বই

 2014 সালের বার্ষিক 3 বৈশ্বিক নাগরিকত্বের জন্য স্থানীয় ভাষাবিজ্ঞানের উপর আলোকপাত

2015 সালের শিক্ষার মধ্যে এবং মাধ্যমে অন্তর্ভুক্তি ভাষা গণনা

 2016 সালের গুণবান শিক্ষা শিক্ষার ভাষা এবং শিক্ষার ফলাফল

 2017 সালে বহুবার শিক্ষার মাধ্যমে টেকসই ভবিষ্যতের দিকে উন্নতির ফলাফল

 2018 সালে আমাদের ভাষা আমাদের সম্পদ

 2019 সালে আদি ভাষার আন্তর্জাতিক বছর

 2020 সালের বার্ষিক ক্রিম হচ্ছে ভাষাগত বৈচিত্র রক্ষা করা

 2021 সালের বার্ষিক শিক্ষা এবং সমাজে অন্তর্ভুক্তির জন্য বহু ভাষা কে উৎসাহিত করা

 2022 সালের বার্ষিক হচ্ছে বহু ভাষা শিক্ষার জন্য প্রযুক্তির ব্যবহার চ্যালেঞ্জ এবং সুযোগ গ্রহণ করা

 তথ্যসূত্র- উইকিপিডিয়া 

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *