21 february

আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস 2022

আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস বাঙালি জাতির গৌরবের দিন এই দিনটি হাজার মানুষের  রক্তের বিনিময়ে বাঙালি জাতির এই দিনটি অর্জিত হয়েছে ।

একুশে ফেব্রুয়ারি বাঙালি জাতি তথা বাংলা ভাষা ব্যবহারকারী সকল স্তরের মানুষের 1 বিরল ইতিহাসের দিন। এই দিনটি শহীদ দিবস আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস হিসেবে পরিচিতি লাভ করে। 

মোদের গরব, মোদের আশা ,আ মরি বাংলা ভাষা!  

তোমার কোলে, তোমার বোলে, কতই শান্তি ভালবাসা! 

কি যাদু বাংলা গানে! গান গেয়ে দাঁড় মাঝি টানে, 

এমন কথা আর আছে গো! 

গেয়ে গান নাচে বাউল, গান গেয়ে ধান কাটে চাষা। 

১৯৫২ সালের এই দিনে (৮ ফাগুন,১৩৫৮ বঙ্গাব্দ)  রোজ বৃহস্পতিবার বাংলাকে পূর্ব পাকিস্তানের অন্যতম রাষ্ট্রভাষা প্রতিষ্ঠিত করার দাবিতে আন্দোলনরত অসংখ্য ছাত্রদের ওপর পুলিশের গুলিতে অনেক তরুণ শহীদ হন।

তোমার কথায় কথা বলি

পাখির গানের মতো…। 

তোমার দেখায় বিশ্ব দেখি

 বর্ণ কত শত…।

হাজার শহীদের রক্তের বিনিময় আমরা যে মাতৃভাষা পেয়েছি তাদের মধ্যে উল্লেখযোগ্য হলেন সালাম, বরকত, রফিক, জব্বার আরো অনেকে তাই এই দিনটি শহীদ দিবস হিসেবে পরিচিতি লাভ করে থাকে। 

মাগো ওরা বলে, সবার কথা কেড়ে নেবে

তোমার কোলে শুয়ে গল্প শুনতে দেবে না।

বলো মা তাই কি হয়? আবু জাফর ওবায়দুল্লাহ 

ই আগস্ট ২০১০  খ্রিস্টাব্দে জাতিসংঘ কর্তৃক গৃহীত সিদ্ধান্ত মোতাবেক প্রতিবছর এই দিনটি একুশে ফেব্রুয়ারি আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস হিসেবে পালন করা হয়ে থাকে ।

 জাতি-ধর্ম-বর্ণ ভোলে

ভাষার জন্য প্রাণ

অকুতোভয় বীর বাঙ্গালী 

করে গেছে দান। 

21 february

ইতিহাসের কালো অধ্যায় 

এই দিনটি বাঙালি জাতির ইতিহাসে এক নির্মম নিষ্ঠুর কালো আত্মা হিসেবে পরিচিতি লাভ করে অর্থাৎ ওই দিন পাকিস্তানের সেনা সদস্যরা বাঙালি জাতির ওপর নির্বিচারে বৃষ্টির মতো গুলি বর্ষণ করে থাকে সেখানে হাজারো ছাত্রসমাজ মুহূর্তের মধ্যে মৃত্যুর মুখে লুটিয়ে পড়ে।

তৎকালীন পূর্ববঙ্গ অর্থাৎ ঢাকায় 1947 সালে ভাষা আন্দোলন নিয়ে সকল কার্যক্রম পরিচালনা করার সূচনা সৃষ্টি হয়।

এবং তারপরে 1948 সালে এই নিয়ে আন্দোলনের প্রস্তুতি গ্রহণ করা হয়। এবং পরবর্তীতে 1952 সালে পূর্ণাঙ্গভাবে আন্দোলন শুরু হলে ঠিক তখনই শুরু হয় বাঙালি জাতির ওপর নির্মম অত্যাচার। 

আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস হিসেবে স্বীকৃতি

১৯৯৯ খ্রিস্টাব্দে ১৭  নভেম্বর অনুষ্ঠিত ইউনেস্কোর প্যারিস শহরে অধিবেশনে প্রস্তাব উত্থাপন করা হয়।

এতে ১৮৮  টি  দেশ সমর্থন জানালেন একুশে ফেব্রুয়ারিকে আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস হিসেবে ঘোষণা করা হয়। 

উদযাপন

১৯৫২ সাল থেকে প্রতিবছর এই দিনটি আন্তর্জাতিক শহীদ দিবস’ হিসেবে উদযাপিত হয়ে আসছে।

এই দিবস এর দিন অর্থাৎ রাত ১২  টা ১  মিনিটে  রাষ্ট্রপতি তথা প্রধানমন্ত্রী উক্ত মন্ত্রণালয়ের বিশেষ মন্ত্রীবর্গ ও আমন্ত্রিত অতিথিবৃন্দ ফুল দিয়ে ভাষা শহীদদের শ্রদ্ধা নিবেদন করে থাকে।

এবং তখন চিরচেনা সেই বাঙালির ভয়ানক যন্ত্রণার কথা স্মরণ করিয়ে দেয় একটি গান আমার ভাইয়ের রক্তে রাঙানো একুশে ফেব্রুয়ারী আমি কি ভুলিতে পারি ।

আন্তরজাতিক ভাবে অমর একুশে অনুষ্ঠান  ও উদযাপন

একুশে ফেব্রুয়ারি প্রতিবছর ইউনেস্কো IMLD দ্বারা আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবসের মূল প্রতিপাদ্য বিষয় নির্বাচন করে. এছাড়া এটি প্যারিসে তার সদরদপ্তরে IMLD  এর সাথে সম্পর্কিত সমস্ত ইভেন্ট স্পনসর উদযাপন করে থাকে. একুশে ফেব্রুয়ারি ফেব্রুয়ারির প্রথম মিনিট  এবং প্রথম প্রাচীন অনুষ্ঠান হল প্রভাত ফেরী. দিবসটির অন্যান্য উদযাপন অনুষ্ঠানের মধ্যে রয়েছে দিবসটির গুরুত্ব সম্পর্কে আলোচনা, জাতীয়, আন্তর্জাতিক এবং প্রাদেশিক পুরস্কার প্রদান. বাংলাদেশ বাংলা ভাষার আদি নিবাস এবং সারাদেশে দিবসটি পালিত হয়. এছাড়া ভারত, কানাডা, রাশিয়া, ফিলিপাইন, চিলি, মিশর ইত্যাদি গ্যাস গুলি সহ সারা বিশ্বেই যথাযোগ্য মর্যাদায় দিবসটি পালিত হয় .

প্রতীক

বাংলাদেশের ঢাকায় শহীদ মিনার (শহীদ স্মৃতিস্তম্ভ) 1952 সালে নিহত চার বিক্ষোভকারীর প্রতি শ্রদ্ধা নিবেদন করে। স্মৃতিস্তম্ভের তিনটি সংস্করণ রয়েছে। প্রথম সংস্করণটি 1952 সালের 22-23 ফেব্রুয়ারি নির্মিত হয়েছিল কিন্তু পুলিশ এবং সেনাবাহিনী কয়েক দিনের মধ্যে এটি ধ্বংস করে দেয়। দ্বিতীয় সংস্করণের নির্মাণকাজ 1957 সালের নভেম্বরে শুরু হয়, কিন্তু সামরিক আইন প্রবর্তনের কারণে নির্মাণ কাজ বন্ধ হয়ে যায় এবং 1971 সালে বাংলাদেশের স্বাধীনতা যুদ্ধের সময় এটি ধ্বংস হয়ে যায়।

শহীদ মিনারের তৃতীয় সংস্করণটি দ্বিতীয় সংস্করণের মতো একই পরিকল্পনায় নির্মিত হয়েছিল। এটি চারটি স্থায়ী মার্বেল ফ্রেম এবং একটি তির্যক শীর্ষ অংশ সহ একটি বড় ডাবল মার্বেল ফ্রেম নিয়ে গঠিত। ফ্রেমগুলি মার্বেল থেকে তৈরি করা হয়েছে এবং একটি মঞ্চে দাঁড়িয়ে আছে, যা মাটি থেকে প্রায় চার মিটার (14 ফুট) উপরে উত্থিত। চারটি ফ্রেম 1952 সালের 21 ফেব্রুয়ারিতে মারা যাওয়া চারজন পুরুষের প্রতিনিধিত্ব করে এবং ডাবল ফ্রেমটি তাদের মা এবং দেশকে প্রতিনিধিত্ব করে। শহীদ মিনারের প্রতিলিপি বিশ্বব্যাপী নির্মিত হয়েছে যেখানে বাংলাদেশের মানুষ বসতি স্থাপন করেছে, বিশেষ করে যুক্তরাজ্যের লন্ডন এবং ওল্ডহামে।

19 ফেব্রুয়ারী, 2006-এ অস্ট্রেলিয়ার সিডনির অ্যাশফিল্ড পার্কে একটি আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবসের স্মৃতিস্তম্ভ স্থাপন করা হয়েছিল। এটি একটি উঁচু প্ল্যাটফর্মে উল্লম্বভাবে মাউন্ট করা স্লেটের একটি স্ল্যাব নিয়ে গঠিত। পাথরের মুখে শহীদ মিনার ও গ্লোবের স্টাইলাইজড ছবি রয়েছে । ইংরেজি ও বাংলায় “আমরা ২১শে ফেব্রুয়ারির শহীদদের স্মরণ করব” এবং পাঁচটি মহাদেশের মাতৃভাষার প্রতিনিধিত্ব করার জন্য পাঁচটি বর্ণমালার শব্দ রয়েছে যেখানে মানুষ বাস করে।

আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস সম্পর্কে:

এটি ইউনেস্কো কর্তৃক 17 নভেম্বর, 1999-এ ঘোষণা করা হয়েছিল এবং 2000 সাল থেকে বিশ্ব পালিত হয়েছিল। দিনটি মাতৃভাষা বাংলাকে রক্ষা করার জন্য বাংলাদেশের দীর্ঘ সংগ্রামকে স্মরণ করে।

২১ ফেব্রুয়ারিকে আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস হিসেবে পালনের ধারণাটি প্রস্তাব করেছিলেন কানাডায় বসবাসকারী বাংলাদেশি রফিকুল ইসলাম। বাংলা ভাষা আন্দোলনের সময় ১৯৫২ সালে ঢাকায় হত্যাকাণ্ডের কথা স্মরণ করার জন্য তিনি উপরোক্ত তারিখটি প্রস্তাব করেছিলেন।

এই উদ্যোগের উদ্দেশ্য হল বিশ্বের বিভিন্ন অঞ্চলের বৈচিত্র্যময় সাংস্কৃতিক ও বৌদ্ধিক ঐতিহ্য রক্ষা করা এবং মাতৃভাষা সংরক্ষণ ও প্রচার করা

বছর সপ্তাহের দিন তারিখ নাম ছুটির ধরন
2017 মঙ্গল 21 ফেব্রুয়ারী আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস জাতিসংঘের পালন
2018 বুধ 21 ফেব্রুয়ারী আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস জাতিসংঘের পালন
2019 বৃহ 21 ফেব্রুয়ারী আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস জাতিসংঘের পালন
2020 শুক্র 21 ফেব্রুয়ারী আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস জাতিসংঘের পালন
2021 সূর্য 21 ফেব্রুয়ারী আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস জাতিসংঘের পালন
2022 সোম 21 ফেব্রুয়ারী আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস জাতিসংঘের পালন
2023 মঙ্গল 21 ফেব্রুয়ারী আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস জাতিসংঘের পালন
2024 বুধ 21 ফেব্রুয়ারী আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস জাতিসংঘের পালন
2025 শুক্র 21 ফেব্রুয়ারী আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস জাতিসংঘের পালন
2026 শনি 21 ফেব্রুয়ারী আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস জাতিসংঘের পালন
2027 সূর্য 21 ফেব্রুয়ারী আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস জাতিসংঘের পালন

সম্পর্কিত তথ্য:

জাতিসংঘের মতে, প্রতি দুই সপ্তাহে একটি ভাষা বিলুপ্ত হয়ে যাচ্ছে এবং বিশ্ব একটি সম্পূর্ণ সাংস্কৃতিক ও বুদ্ধিবৃত্তিক ঐতিহ্য হারাচ্ছে।

বিশ্বায়নের যুগে উন্নত কর্মসংস্থানের জন্য বিদেশী ভাষা শেখার প্রতিযোগিতা মাতৃভাষা হারিয়ে যাওয়ার অন্যতম প্রধান কারণ।

পৃথিবীতে কথা বলা আনুমানিক 6000টি ভাষার প্রায় 43% বিপন্ন।

প্রকৃতপক্ষে মাত্র কয়েকশ ভাষা শিক্ষা ব্যবস্থায় এবং সরকারি খাতে স্থান পেয়েছে।

বিশ্ব জনসংখ্যার প্রায় 40% তারা যে ভাষায় কথা বলে বা বোঝে তাতে শিক্ষা পায়নি।

ডিজিটাল বিশ্বে মাত্র শতাধিক ভাষা ব্যবহার করা হয়।

ভাষা সংরক্ষণের জন্য বিশ্বব্যাপী প্রচেষ্টা:

জাতিসংঘ ২০২২ থেকে ২০৩২ সালকে আদিবাসী ভাষার আন্তর্জাতিক দশক হিসেবে চিহ্নিত করেছে।

এর আগে জাতিসংঘের সাধারণ পরিষদ ২০১৯ সালকে আন্তর্জাতিক আদিবাসী ভাষার বছর হিসেবে ঘোষণা করেছিল।

2018 সালে চাংশা (চীন) এ ইউনেস্কোর ইউয়েলু ঘোষণা ভাষাগত সম্পদ এবং বৈচিত্র্য রক্ষার জন্য বিশ্বের দেশ ও অঞ্চলের প্রচেষ্টাকে নির্দেশিত করতে একটি কেন্দ্রীয় ভূমিকা পালন করে।

অমর একুশে বইমেলা মাসব্যাপী

বহু বছর ধরে মেলা চলে একুশে ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত।তবে বিক্রেতা, ক্রেতা ওদর্শনার্থীদের চাহিদার কারণে পুরো ফেব্রুয়ারি মাস ব্যাপী মেলা দীর্ঘায়িত হয়। বাংলাদেশ সরকারের সংস্কৃতি বিষয়ক অধিদপ্তর এই মেলার নিয়ন্ত্রণ করো। প্রকাশক, লিটল  ম্যাগাজিন,চাইল্ড কর্নার, বেসরকার  ও  সরকারি প্রতিষ্ঠান জন্য  স্টল ভাগ করা হয়েছে।  তাছাড়া ভাষা আন্দোলনের শহীদ সালাম বরকত রফিক জব্বার সহ আরো অনেকে খ্যাতিমান ব্যক্তিদের নাম অনুসারে মেলায় ভাগ করা হয়। এখানে অনেক স্থানীয় প্রকাশের পাশাপাশি ভারত,  জাপান, রাশিয়া এবং অন্যান্য দেশের কিছু বিদেশি  প্রকাশক এসেছে। কিছু সরকারি প্রতিষ্ঠান মেলায় স্টল নয় যেমন বাংলাদেশ পর্যটন ইত্যাদি। এছাড়া বর্তমান সময়ে, সিডি, ভিসিডি এবং ভিডিওর মতো কিছু ডিজিটাল প্রকাশক একুশে বইমেলার স্থান করে নেয়। কিছু মোবাইল অপারেটর বেলায় আসে তাদের নতুন পণ্য ও অফার দিতে।

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *