4vTF

14 ই ফেব্রুয়ারি যেভাবে এল,14 ফেব্রুয়ারি এসএমএস, শুভেচ্ছা, ছন্দ, পিকচার, ওয়ালপেপার, রোমান্টিক কবিতা এবং এনিমেটেড গিফট

14 ই ফেব্রুয়ারি যেভাবে এল,14 ফেব্রুয়ারি এসএমএস, শুভেচ্ছা, ছন্দ, পিকচার, ওয়ালপেপার, রোমান্টিক কবিতা  এবং এনিমেটেড গিফট, উল্লেখিত বিষয় নিয়ে, ভ্যালেন্টাইন্স ডে পৃথিবীতে এই দিবসটি পালন করার ক্ষেত্রে অনেক রকমের ইতিহাস লুকায়িত রয়েছে।  যে ইতিহাস গুলোর মধ্য থেকে নির্ধারিত হয় বিশ্ব ভালোবাসা দিবস।বিশ্ব ভালোবাসা দিবসের ইতিহাস এবং কোথায় কখন কোন সময় থেকে দিবসটি পালিত হয়ে আসছে। এবং কেন দিবসটি পালন করা হয় ?

সকল প্রশ্নের উত্তর জানতে উপস্থাপন করা হল বিশ্ব ভালোবাসা দিবস। 14 ই ফেব্রুয়ারি সাথে যুক্ত বিভিন্ন ভ্যালেন্টাইন এর সাথে জড়িত অনেক শাহাদত কাহিনী রয়েছে। তৃতীয় শতাব্দীতে রোমান সাম্রাজ্যের অধীনে নির্যাতিত খ্রিস্টানদের অধীনে সেবা করার জন্য  রোমের সেন্ট ভ্যালেন্টাইনের কারাবাসের সাথে একটি প্রাথমিক ঐতিহ্য হিসেবে জেলার এর অন্ধ মেয়ের দৃষ্টিশক্তি ফিরিয়ে দেওয়ার সুবাদে ভ্যালেন্টাইন এর সাথে সম্পূর্ন সংযুক্ত ছিল।

যা পরবর্তীতে বিভিন্ন আলোচনা-সমালোচনার ভিত্তিতে ভ্যালেন্টাইন ডে উৎপত্তি হয়।এছাড়া 496 খ্রিস্টাব্দে পোপ গেলাসিয়াস দাঁড়া ভ্যালেন্টাইন্স ডের উৎসব 14 ই ফেব্রুয়ারি রোমের সেন্ট ভ্যালেন্টাইনের সম্মানে পালিত হওয়ার জন্য অনুষ্ঠিত হয়েছিল। যিনি 269 খ্রিস্টাব্দে সেই তারিখে মারা যান। দিনটি রোমান্টিক প্রেমের সাথে সংযুক্ত  হয়েছিল। 

14 তম এবং 15 তম শতাব্দীতে ধারণা গুলি বিকাশ লাভ করেছিল।দিবসটি বসন্তের শুরুর দিকে তারিখ মিল রেখে পালনের ক্ষেত্রে 18 শতকে ইংল্যান্ডে দম্পতিরা তাদের ভালোবাসা প্রকাশের মাধ্যমে একজন আরেকজনকে ফুল উপহার দিয়ে বিভিন্ন মিষ্টান্ন বিতরণ করে এবং ভ্যালেন্টাইন্স ডের বিভিন্ন কার্ড বিতরণের মাধ্যমে প্রকাশ পায় বিশ্ব ভালোবাসা দিবস।যেখান থেকে পরবর্তীতে  19 শতকে এসে ইটালিতে ভ্যালেন্টাইন্স ডে ভালোবাসার প্রতীক হিসাবে বিভিন্ন মাধ্যমে তরুণ-তরুণীরা নবদম্পতিরা তারা প্রকাশ করতে থাকে বিশ্ব ভালোবাসা দিবসের সকল আয়োজন।

Contents hide

ভ্যালেন্টাইন্স ডে ইতিহাস

অনেক প্রারম্ভিক ক্রিস্টান শহীদদের নাম দেওয়া হয়েছিল ভ্যালেন্টাইন।14 ই ফেব্রুয়ারি কে সম্মানিত করার জন্য  ভ্যালেন্টাইন্স ডে রুমের রোমের ইতিহাস তথা ইতালির পোপ গেলিয়াস দাঁড়া ক্যালেন্ডারে সাধুদের যোগ করা হয়েছিল। এছাড়া পৃথিবীর অধিকাংশ রাষ্ট্রের বিভিন্ন বার্তার মাধ্যমে তারা উক্ত দিবসটি সম্পর্কে যথেষ্ট আলোচনা সমালোচনা করে বিশ্ব ভালোবাসা দিবসের ইতিহাস সম্পর্কে আজ অব্দি সঠিক কোনো ব্যাখ্যা পরিষ্কার হয়ে ওঠেনি। সেক্ষেত্রে জনপ্রিয়তার শীর্ষে 14 ই ফেব্রুয়ারি বিশ্ব ভালোবাসা দিবস হিসেবে পৃথিবীর উন্নত রাষ্ট্রগুলি বিভিন্ন মাধ্যমে ইতিহাস পর্যালোচনা করে তারা তাদের এই দিবসটি নিয়মিত পালন করে আসছে।

ভ্যালেন্টাইন্স ডে ঘিরে লোকঐতিহ্য

যদিও আমেরিকার কিংবদন্তি নবদম্পতি তরুণ-তরুণীরা তারা তাদের লোকবলের ঐতিহ্যের ধারাবাহিকতা ধরে রেখে বসন্তের শুরুর সাধুদের কে ঘিরে সকল তথ্য বিশ্লেষণ করে বিশ্ব ভালোবাসা দিবস উপলক্ষে বসন্তের আগমন ঘটে তখন কার সংগ্রহীত বিভিন্ন প্রকার ফল দিয়ে চকলেট দিয়ে মিষ্টি বিতরণ করে ভ্যালেন্টাইন্স ডে কার্ড এর মাধ্যমে তারা তাদের বিশ্ব ভালোবাসা দিবস রোমান্টিকতা উদযাপন করে থাকেন।

লোক ঐতিহ্যের ধারায় কালের বিবর্তনে পৃথিবীর অধিকাংশ দেশ এখন 14 ই ফেব্রুয়ারি মানে বিশ্ব ভালোবাসা দিবস হিসাবে তারা তাদের সকল আয়োজন গুলি করে থাকে। যা বর্তমান সময়ের প্রেক্ষাপটে অত্যন্ত জনপ্রিয় একটি দিবস। এছাড়া যেভাবে তারা মনে করে স্বীকৃতি প্রদান করে ভ্যালেন্টাইন্স ডে বসন্তের সাধুর ভালোবাসা সংযুক্ত  করে। 

ভ্যালেন্টাইন্স ডে রোমান্টিক প্রেমের সংযোগ

বিশ্ব ভালোবাসা দিবস  গোড়াপত্তনের দিকে তাৎপর্যপূর্ণ ব্যাখ্যা বিশ্লেষণ করে আজ অব্দি সঠিক ধারনাটুকু অজানাই থেকে যায় তবুও ভালোবাসার টানে প্রেমের টানে মনের টানে দম্পতিরা একজন আরেকজনকে বসন্তের বিভিন্ন ফুল দিয়ে একজন আরেকজনকে ভালোবেসে বরণ করে নেয় এবং পৃথিবীর সকল তরুণ তরুণীরা ঐদিন কে ঘিরে তাদের সকল ভালোবাসার অনুভূতিটুকু প্রকাশ করে থাকে।

বিভিন্ন উপহার প্রদান করে সেক্ষেত্রে কেউ চকলেট বিনিময় করে থাকে। মিষ্টি বিতরণ করে থাকে। বিভিন্ন ভ্যালেন্টাইন্স ডে কার্ড বিতরণ করে তারা তাদের মনের ভালোবাসা টুকু প্রকাশ করে থাকে। এছাড়া বিশ্ব ভালোবাসা দিবস রোমান্টিক প্রেমের সাথে বর্তমান আধুনিকায়নের যুগে এমন ভাবে সংযুক্ত হয়েছে যেন ওই দিনে তারা তাদের সকল প্রেমিক প্রেমিকার মনে উদয় হয় বিশ্ব ভালোবাসা দিবসের  সকল আয়োজন।

ভালোবাসার আদালতে হ্যাপি ভ্যালেন্টাইনস ডে 

বিশ্ব ভালোবাসা দিবস 14 ই ফেব্রুয়ারি সর্বপ্রথম ভালোবাসার আদালতে বর্ণনা করে গেছেন অনেক কীর্তিমান ব্যক্তি বর্গ গন। উল্লেখিত ওই দিনটি ঘিরে সঠিকভাবে পর্যালোচনা করে ভালোবাসার আদালতে নির্দিষ্ট কোনো নিয়মনীতির ব্যাখ্যা প্রকাশ করতে পারেনি। সে ক্ষেত্রে আরো অজানা থেকে যায় বিশ্ব ভালোবাসা দিবসে সকল উৎসাহ উদযাপন আয়োজন গুলি।

ভ্যালেন্টাইন্স ডে কবিতা

ভ্যালেন্টাইনস ডে কে ঘিরে অসংখ্য প্রেমিক-প্রেমিকা দম্পতিরা এবং বিশেষজ্ঞরা তারা তাদের অনুভূতিটুকু দিয়ে মনের মাধুরী মিশিয়ে উক্ত দিন সম্পর্কে অসংখ্য কবিতা আবৃতি করে গেছেন। সেক্ষেত্রেও বিশ্ব ভালোবাসা দিবসের প্রধান ভূমিকা পালন করে থাকে উক্ত কবিতা গুলি। পৃথিবীতে বর্তমান সময়ের প্রেক্ষাপটে আজ অবধি পর্যন্ত ভ্যালেন্টাইন্স ডে সম্পর্কে যত প্রকার কবিতা-গান, এসএমএস,ছন্দ,শুভেচ্ছা বাণী প্রকাশ করা হয়েছে সকল ক্ষেত্রে সঠিক একটি নির্দেশনা প্রকাশিত হয়। তা হচ্ছে 14 ই ফেব্রুয়ারি মানেই হচ্ছে বিশ্ব ভালোবাসা দিবস। এবং ওই দিনটি ঘিরে যত আয়োজন তার প্রধান একটি অংশ ভ্যালেন্টাইন্স ডে কবিতা। 

হ্যাপি ভ্যালেন্টাইনস ডে উদযাপন

বিশ্ব ভালোবাসা দিবস বর্তমান পৃথিবীর সকল রাষ্ট্র উদযাপন করে আসছে। সেক্ষেত্রে এখন পর্যন্ত বিভিন্ন জনের বিভিন্ন ব্যাখ্যা বিশ্লেষণ মতাদর্শ অনুযায়ী বিভ্রান্তিমূলক অবস্থার মধ্যেও বিশ্বব্যাপী উদযাপন করা হচ্ছে 14 ই ফেব্রুয়ারি। এছাড়া বর্তমান সময়ে অবস্থার বিবরণীতে পৃথিবীর উন্নত দেশগুলি বিশ্ব ভালোবাসা দিবসকে ঘিরে ঐদিনের উদযাপন সম্পর্কে সর্বোচ্চ আগ্রহ প্রকাশ করে থাকে সকল শ্রেণীর মানুষ।

আমেরিকার শুভেচ্ছা হ্যাপি ভ্যালেন্টাইনস ডে

14 ই ফেব্রুয়ারি মানে বিশ্ব ভালোবাসা দিবস সর্বোচ্চ উৎসাহ উদ্দীপনার মধ্যে সকল শ্রেণীর মানুষ অর্থাৎ নবদম্পতিরা, তরুণ-তরুণীরা, পেশাজীবী মানুষ এবং সকল ধর্মের মানুষ একাগ্রতা প্রকাশ করে আমেরিকা দিবসকে ঘিরে সকল উৎসাহ-উদ্দীপনা প্রকাশ করে থাকে। 

ব্রাজিল হ্যাপি ভ্যালেন্টাইন্স ডের পক্ষে নয়

14 ই ফেব্রুয়ারি ব্রাজিল পালন করার ক্ষেত্রে মোটেও পক্ষপাতিত্ব নয়। তারা তাদের গুরুত্বপূর্ণ একটি দিবস বিশেষ করে তরুন তরুনীরা সকল পেশাজীবী মানুষেরা তাদের ভালোবাসা প্রকাশ করার ক্ষেত্রে প্রেমীদের কামরা দিবস, বন্ধু দিবস, দুধ দিবস 12 ই জুন দিনটি উদযাপন করে থাকে।উল্লেখিত  দিনটি  ঘিরে বিভিন্ন অবিবাহিত মেয়েরা তারা তাদের ভাল একজন স্বামী খোঁজার জন্য বিভিন্ন ধরনের গিফট সামগ্রী যেমন চকলেট মিষ্টি ফুল ইত্যাদি আদান-প্রদানের মাধ্যমে দিবসটি পালন করে থাকে। 

যুক্তরাষ্ট্র হ্যাপি ভ্যালেন্টাইনস ডে শুভেচ্ছা

মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে প্রতি বছর প্রায় 190 মিলিয়ন ভ্যালেন্টাইন্স ডের কার্ড পাঠানো হয়। যার মধ্যে উল্লেখযোগ্য কয়েক মিলিয়ন কার্ড স্কুলের বাচ্চাদের মত বিনিময় করা হয়। ভ্যালেন্টাইন্স ডে বর্তমান মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের অর্থনৈতিক একটি কার্যকালাপ হিসাবে  দাঁড়িয়েছে। যা 2017 সালে মোট ব্যয় 18 দশমিক 2 বিলিয়ন। যা 2010 সাল থেকে জনপ্রতি 108 বৃদ্ধি পেয়েছে।তথ্যসূত্র- উইকিপিডিয়া। এছাড়া বর্তমান সময়ের প্রেক্ষাপটে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র 14 ই ফেব্রুয়ারি বিশ্ব ভালোবাসা দিবস সর্বোচ্চ জনপ্রিয়তার একটি দিবস হিসেবে পালন করে আসছে।

এশিয়া মহাদেশ হ্যাপি ভ্যালেন্টাইনস ডে

14 ই ফেব্রুয়ারি কে ঘিরে  এশিয়া মহাদেশের যতগুলি  সংযুক্ত রাষ্ট্র রয়েছে তাদের মধ্যে প্রায় সকল দেশেই এখন 14 ই ফেব্রুয়ারি বিশ্ব ভালোবাসা দিবস পালন করা হয় যদিও এ সম্পর্কে বিভিন্ন দেশের বিভিন্ন যুক্তিতর্ক মতভেদ পার্থক্য রয়েছে।তথাপি কালের বিবর্তনের হাওয়ায় দিন যতই যাচ্ছে ততই পৃথিবীর প্রতিটি প্রান্তে প্রতিটি দেশেই 14 ই ফেব্রুয়ারি কে ঘিরে উৎসব উদযাপন প্রেমিক প্রেমিকা নবদম্পতিরা তারা তাদের রোমান্টিক ভালোবাসার বহিঃপ্রকাশ ঘটাতে ওই দিনে সকল আয়োজন করে থাকেন।

ইউরোপ কান্ট্রি হ্যাপি ভ্যালেন্টাইনস ডে

14 ই ফেব্রুয়ারি কে ঘিরে ইউরোপ কান্ট্রির অধিকাংশ দেশ গুলি ভ্যালেন্টাইন্স ডে বিশ্ব ভালোবাসা দিবস উৎসাহ উদযাপন করে থাকেন। সেক্ষেত্রে ওই দিনের বিশেষ ভূমিকা পালন করে থাকে একজন প্রেমিক একজন প্রেমিকা কে, একজন ভালোবাসার মানুষ আরেকজন ভালোবাসার মানুষকে, একজন নবদম্পতি তার প্রিয় মানুষটিকে, বিভিন্ন প্রকার চকলেট উপহার সামগ্রী বিতরণ এবং ফুল দিয়ে বরণ করে নেয় ভালোবাসাকে ঘিরে ওই দিন উদযাপন উপলক্ষে।

 জনপ্রিয় সংস্কৃতিতে ভ্যালেন্টাইনস ডে

পৃথিবীর অধিকাংশ দেশগুলিতে চলচ্চিত্র নির্মাতারা তারা তাদের বিভিন্ন অনুষ্ঠানের মধ্যে প্রধান একটি অংশ হিসাবে বিশ্ব ভালোবাসার দিন প্রচার করে থাকে বিভিন্ন প্রকার মুভি।

 ভ্যালেন্টাইন্স ডে নিষিদ্ধ করার রায়

উল্লেখযোগ্যভাবে, পাকিস্তানের হাইকোর্টে তারা রায় প্রকাশ করে থাকে, ভ্যালেন্টাইন্স ডে পালন করার ক্ষেত্রে সম্পূর্ণ নিষিদ্ধ ঘোষণা করা হয়। এছাড়া ইন্দোনেশিয়াতে  ভ্যালেন্টাইন্স ডে পালন করা সম্পূর্ণ নিষিদ্ধ করা হয়। কারণ এটি ইসলাম ধর্মের অংশ নয়।ইরান দেশটিতে ভ্যালেন্টাইন্স ডে সম্পূর্ণ নিষিদ্ধ করা হয়। ইসলাম ধর্মের মতাদর্শ অনুযায়ী মোটেও মুসলমানদের ভ্যালেন্টাইন্স ডে পালন করা কাম্য নয়।

তথ্যসূত্র- উইকিপিডিয়া

14 ই ফেব্রুয়ারি রোমান্টিক ওয়ালপেপার 

বিশ্ব ভালোবাসা দিবস 14 ই ফেব্রুয়ারি 2022 উদযাপন উপলক্ষে বিশেষ দিনটি ঘিরে এ আয়োজনের মধ্যে প্রধান ভূমিকা পালন করে থাকে রোমান্টিক ওয়ালপেপার। অর্থাৎ  দিবস উপলক্ষে পৃথিবীর প্রত্যেকটি মানুষ একজন আরেকজনকে তার প্রিয় মানুষটিকে ভালোবেসে রোমান্টিক মুহূর্ত গুলি অনুভব করে মনের না বলা কথাগুলো প্রকাশ করতে পারে প্রধান মাধ্যম হিসেবে রোমান্টিক ওয়ালপেপার বিনিময় করে।

অর্থাৎ ওই দিনটি সাফল্যমন্ডিত করতে খুব সহজেই একজন প্রেমিক তার প্রেমিকাকে রোমান্টিক কিছু বাণীর মাধ্যমে তার মনের অনুভব প্রকাশ করার লক্ষ্যে ভালোবাসা দিবসে প্রকাশ করে থাকে।তাই আপনারা যারা বিশ্ব ভালোবাসা দিবস 14 ই ফেব্রুয়ারি উপলক্ষে বিভিন্ন রোমান্টিক ওয়ালপেপার এর পিক এবং গুরুত্বপূর্ণ কিছু বাণী আপনার প্রিয় মানুষটিকে দিয়ে দিনটির সকল স্বার্থকতাটুকু পূরণ করতে এখান থেকে ব্যবহার করতে পারেন রোমান্টিক  ওয়ালপেপার। 

14 ই ফেব্রুয়ারি রোমান্টিক এসএমএস

প্রতিটি মানুষের জীবনে একটি বছর পরে ভালোবাসার একটি বিশেষ দিন উপস্থিত হয়ে থাকে অর্থাৎ বিশ্ব ভালোবাসা দিবস এই দিবস পালন করতে প্রতিটি যুবসমাজ তরুণ-তরুণী এবং সকল স্তরের মানুষ রোমান্টিক কিছু এসএমএস সংগ্রহ করে তার প্রিয় মানুষকে দিয়ে থাকে এবং মনের না বলা কিছু কথা যা একমাত্র মাধ্যম হিসেবে এসএমএসের মাধ্যমে প্রকাশ করা সম্ভব।তাই আজকে 14 ই ফেব্রুয়ারি বিশ্ব ভালোবাসা দিবস উপলক্ষে আপনার কাঙ্খিত প্রিয় মানুষটিকে রোমান্টিক এসএমএস এর মাধ্যমে ভরিয়ে তুলতে পারেন আপনাদের চাওয়া-পাওয়ার ভালোবাসার সকল মুহূর্তগুলি।

14 ই ফেব্রুয়ারি ফেসবুক স্ট্যাটাস

বর্তমান তথ্যপ্রযুক্তির এই যুগে কোন দিবস মানুষ অত্যন্ত গুরুত্ব সহকারে পালন করে থাকে পৃথিবীতে একমাত্র অমূল্য একটি সম্পদ তা হচ্ছে ভালোবাসা সেই ভালোবাসাকে পরিপূর্ণতায় ভরিয়ে তুলতে পৃথিবীর প্রতিটি মানুষ এসে সেই দিনটি ঘিরে আয়োজন করে থাকে।আর এই আয়োজনের সকল সার্থকতা টুকু আপনি নিমিষের মধ্যে ফেসবুকে স্ট্যাটাস মাধ্যমে পৃথিবীর প্রতিটি মানুষের কাছে পৌছে দিতে পারেন বিশ্ব ভালোবাসা দিবসের বাণী।বর্তমান সামাজিক যোগাযোগের প্রধান একটি মাধ্যম হচ্ছে ফেসবুক। যার বিনিময় মুহূর্তের মধ্যেই পৃথিবীর এক প্রান্ত থেকে অন্য প্রান্তে নিজের ব্যক্তিগত তথ্য সকল কর্মকান্ডের বাস্তব নিদর্শন স্বরূপ সকল আয়োজন কে উদ্দেশ্য করে ফেসবুকে স্ট্যাটাস ব্যবহার করতে পারেন।

14 ই ফেব্রুয়ারি এনিমেটেড গিফট 

বিশ্ব ভালোবাসা দিবস মানে অন্যরকম একটি দিবস বিশেষ করে যুব সমাজ তথা তরুণ-তরুণীদের মধ্যে অন্যরকম অনুভূতি প্রকাশ করে থাকে এই দিনটিতে এছাড়াও পৃথিবীর সকল শ্রেণীর মানুষ এই দিনটিতে তাদের সকল প্রিয় মানুষগুলিকে নিয়ে যে সকল আয়োজন করে থাকে তার প্রধান ভূমিকা পালন করে থাকে এনিমেটেড গিফট।অর্থাৎ আপনি আপনার প্রিয় মানুষটিকে এই দিনটিতে অবশ্যই একটি অ্যানিমেটেড গিফট প্রদান করলে আপনার ভালোবাসার সকল চাওয়া পাওয়া পূর্ণতার স্বার্থ কতটুকু নির্ভর করে তার মাধ্যমে।এককথায়, বিশ্ব ভালোবাসা দিবস মানেই আপনার প্রিয় মানুষটিকে ভালোবেসে সম্মান জানানোর প্রধান একটি মাধ্যম হচ্ছে এনিমেটেড গিফট।

14 ই ফেব্রুয়ারি শুভেচ্ছা

প্রতিটি মানুষের জীবনে ব্যক্তিগতভাবে ভালোবাসা নির্দিষ্ট একটি সময়ে আবির্ভূত হয়ে থাকে যে ভালোবাসার বিনিময় পৃথিবীর প্রতিটি মানুষ তাদের সকল চাওয়া পাওয়াকে আবিষ্কার করে থাকে ভালবাসার টানে ঠিক তার ধারাবাহিকতায় বিশেষ এই বিশ্ব ভালোবাসা দিনটি আপনি যদি সাফল্যমণ্ডিত করতে চান তাহলে অবশ্যই আপনার প্রিয় মানুষকে তথা পৃথিবীর প্রতিটি মানুষকে মুহূর্তের মধ্যেই 14 ই ফেব্রুয়ারির শুভেচ্ছা আদান-প্রদান করতে পারেন। যে ক্ষেত্রে বিশ্ব ভালোবাসা দিবস উপলক্ষে শতকরা 90 ভাগ মানুষ তাদের সকল পরিচিত প্রিয় মানুষগুলিকে শুভেচ্ছা কার্ড শুভেচ্ছা বিনিময় এবং বিভিন্ন শুভেচ্ছা এসএমএস প্রদান করে দিনটি পালন করে থাকে। 

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *