অনলাইনে ট্রেনের টিকেট বুকিং

অনলাইনে ট্রেনের টিকেট বুকিং-বর্তমান সময়ের প্রেক্ষাপটে ট্রেন জার্নি সবচাইতে বেশিরভাগ মানুষ পছন্দ করে থাকে। তাই এক্ষেত্রে অনেক সময় অপচয় করে আমরা আমাদের ট্রেনের টিকিট সংগ্রহ করতে পারিনি। সে ক্ষেত্রে টিকিট কাউন্টারে অনেক সময় টিকেট থাকেনা আবার অনেক ভিড়ের কারণে টিকেট কেনা সম্ভব হয় না।

অনলাইনে ট্রেনের টিকেট বুকিং

অনলাইনে ট্রেনের টিকেট বুকিং দীর্ঘ সময় লাইনে দাঁড়িয়ে থেকে ট্রেনের টিকেট সংগ্রহ করতে হয়। আবার সময়ের অভাবে স্টেশনে গিয়ে টিকিট কেনা সম্ভব হয় না। এক্ষেত্রে আমরা খুব সহজেই অনলাইনের মাধ্যমে ট্রেনের টিকেট সংগ্রহ করতে পারি। নিচের এই পেজে বিস্তারিত আলোচনা  করা হলো। চলুন এবার দেখা যাক অনলাইনে কিভাবে আমরা ট্রেনের টিকেট পাবে

ওয়েবসাইট ওপেন করুন

বাংলাদেশ রেলওয়ের ওয়েবসাইট https://esheba.cnsbd.com-এ যেতে হবে। তারপর সাইন-ইন অথবা সাইন-আপ অপশন খোলা থাকবে। যাদের ইতোমধ্যেই অ্যাকাউন্ট খোলা রয়েছে তারা সাইন-ইন করবেন। অ্যাকাউন্ট খোলার জন্য সাইন-আপ ক্লিক করতে হবে।

পেজে যান

সাইন-আপ ক্লিক করার পর ব্যবহারকারীর সামনে একটি পেজ আসবে। সেখানে নাম, ই-মেইল, পাসওয়ার্ড, বর্তমান ঠিকানা ও মোবাইল ফোন নাম্বার দিতে হবে। মনে রাখবেন, অ্যাকাউন্ট যার নামে খোলা হবে তিনিই টিকিটের মালিক হবেন এবং একটি মোবাইল নাম্বার দিয়ে একটি অ্যাকাউন্ট খোলা যায়। যে নাম্বার দিয়ে টিকিট বুকিং দেওয়া হয় সেটি টিকিটের পিডিএফে দেখানো হয়।

সাইন-ইন করুন

এবার ব্যবহারকারীর ই-মেইলে আসা ‘পিন’ দেখুন। এবার ই-মেইল, রেলওয়ে আইডির পাসওয়ার্ড ও সিকিউরিটি কোড দিয়ে সাইন-ইন করুন। তারপর আরেকটি ট্যাব ওপেন হবে। সর্বশেষ ধাপে মোবাইলের মেসেজে একটি ভেরিফিকেশন কোড আসবে। এবার কোডটি লিখে ‘চেক ভেরিফিকেশন কোড’ ক্লিক করুন। ব্যাস! আপনি এখন রেলওয়ে অ্যাকাউন্টের মালিক হয়ে গেলেন।

টিকিটের মূল্য জানতে কী করবেন?

টিকিটের মূল্য জানার জন্য ফেয়ার কোয়ারি বাটনে ক্লিক করুন। এখানে কিছু তথ্য সিলেক্ট করে ‘শো-ফেয়ার’ বাটনে ক্লিক মূল্য জানা যাবে।

কীভাবে টিকিট কিনবেন?

টিকিট বুকিং দেওয়ার জন্য ‘পারচেজ টিকিট’ অপশনে ক্লিক করুন। তারপর একটি পেজ ওপেন হবে। সেখানে ‘স্টেশন ফ্রম’ ও ‘স্টেশন টু’ সিলেক্ট করবেন। ভ্রমণের তারিখ সিলেক্ট করার পর ক্লাস বাটনে ক্লিক করতে হবে। এবার যে ধরনের টিকেট প্রয়োজন, সেটি সিলেক্ট করে ‘সার্চ ট্রেন’ অপশনে ক্লিক করুন।

ট্রেন সিলেকশন

যে তারিখে ও রুটে ট্রেন সিলেকশন দিয়েছেন, সে তারিখ ও রুটে এক বা একাধিক ট্রেন থাকতে পারে। এ স্তরে কোনটি কখন ছাড়বে সেটি দেখানো হবে। যে ট্রেনে ভ্রমণে আপনি ভ্রমণ করতে চান, সে ট্রেনে প্রাপ্তবয়স্ক ও শিশুর সংখ্যা সিলেক্ট করুন। বাংলাদেশ রেলওয়েতে প্রাপ্তবয়স্ক ও শিশুসহ মোট চার জনের বেশি টিকিট দেওয়া হয় না।

টিকিট সিলেকশন

এবার আসা যাক টিকিট সিলেকশনে। এতে ‘অটো-সিলেকশন’ ও ‘সিট সিলেকশন’ নামে দুটি অপশন রয়েছে। ‘অটো-সিলেকশন’ সিলেক্ট করলে রেলওয়ের পছন্দমতো সিট দেওয়া হবে। অন্যদিকে ‘সিট-সিলেকশন’ সিলেক্ট করলে নিজের পছন্দ অনুযায়ী সিট বেছে নিতে পারবেন।

সিট-সিলেকশন

‘সিট-সিলেকশন’ সিলেক্ট করলে এক বা একাধিক বগির সিট-প্লান দেখানো হবে। এর মধ্যে সুবিধাজনক সিট বেছে নেওয়ার সুযোগ রয়েছে আপনার। সিটগুলো ‘লাল’ ও ‘সবুজ’ হিসেবে দেখা যাবে। ‘লাল’ দেখা গেলে বুঝবেন সিটটি ইতোমধ্যেই বিক্রি হয়ে গেছে। পক্ষান্তরে ‘সবুজ’ দেখা গেলে সিটটি এখনও বিক্রি হয়নি।

টিকিট কেনার সময়

বাংলাদেশ রেলওয়ের টিকিট কেনার সময় সকাল ছয়টা থেকে রাত এগারোটা। অর্থাৎ রাত এগারোটার পর টিকিট কেনা সম্ভব নয়।

পেমেন্ট

ভিসা, মাস্টারকার্ড, অ্যামেরিকান এক্সপ্রেস, ডিবিবিএল নেক্সাস, ডিবিবিএল মোবাইল ব্যাংকিংয়ের মাধ্যমে বাংলাদেশ রেলওয়েতে পেমেন্ট করা যায়। পেমেন্টের অপশনে আপনি যেটি ব্যবহার করে পেমেন্ট করতে চান সেটি সিলেক্ট করবেন।

সাইন-আউট

এবার রেলওয়ের সাইন-আউট করুন। ই-মেইলে টিকিটের পিডিএফ কপি আসবে। সুবিধামাফিক ডাউনলোড অথবা প্রিন্ট করে নিন। কাউন্টার থেকে টিকিটের হার্ডকপি নিতে চাইলে মোবাইল নাম্বার ও টিকিটের পিন নাম্বার লিখে সেখানে জমা দিন।

পিডিএফ কপি

টিকিট যার নামে কেনা হয়েছে, পিডিএফ কপিটি তার নামেই হবে। তাই অন্য কেউ এ টিকিট নিয়ে ভ্রমণ করতে পারবেন না। যদি কেউ এমনটি করেন, তাহলে নির্ধারিত কর্তৃপক্ষ যেকোনো ব্যবস্থা নিতে পারেন। Refarens-sportsnet24

আরওপড়ুন>>>ঢাকা থেকে পোড়াদহ ট্রেনের নতুন সময়সূচী এবং ভাড়া

আরওপড়ুন>>>ঢাকা থেকে ময়মনসিংহ ট্রেনের নতুন সময়সূচী এবং ভাড়া

আরওপড়ুন>>>ঢাকা থেকে যশোর ট্রেনের নতুন সময়সূচী এবং ভাড়া

আরওপড়ুন>>>ঢাকা থেকে কুমিল্লা ট্রেনের নতুন সময়সূচী এবং ভাড়া

আরওপড়ুন>>>ঢাকা থেকে পঞ্চগড় ট্রেনের নতুন সময়সূচী এবং ভাড়া

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *