কালোজিরা খাওয়ার নিয়ম,উপকারিতা এবং এর গুনাবলী

কালোজিরা খাওয়ার নিয়ম,উপকারিতা এবং এর গুনাবলী-মহান সৃষ্টিকর্তা তার মানবজাতিকে ভালোবেসে এবং তারা যেন সকল ক্ষেত্রে ভালো থাকে এর পরিপ্রেক্ষিতে তিনি মহা একটি ঔষধ প্রকৃতির মাঝে দান করেছেন।

যার সম্পর্কে ইসলাম ধর্মের শ্রেষ্ঠ পৃথিবীর শ্রেষ্ঠ মানুষ যিনি হযরত মুহাম্মদ সাল্লাম তিনি নিজেই  বলেছেন, কালোজিরা এর গুণ ক্ষমতা আল্লাহতালা এতটাই বেশি দিয়েছেন যে, মৃত্যু ছাড়া সকল রোগের ঔষধ বলা হয়ে থাকে এই কালোজিরাকে ।কালোজিরা খাওয়ার নিয়ম

এছাড়া কিভাবে কখন কোন সময় কোন উপায় আপনি খেলে সদাসর্বদা সুস্থ থাকবেন। এবং এর যে গুণাবলী গুলো আছে তা সম্পূর্ণ আপনি পাবেন। তারই ধারাবাহিকতায় নিচে উল্লেখ করলাম। কালোজিরা খাওয়ার নিয়ম

কালোজিরা খাওয়ার নিয়ম

কালোজিরা খাওয়ার নিয়ম এই পৃথিবীতে আল্লাহতালা যতগুলো জিনিস সৃষ্টি করেছেন বান্দার নিয়ামতের জন্য, প্রত্যেকটি জিনিসই আপনার খাওয়ার কিছু নিয়ম-নীতি রয়েছে, সেই নিয়ম নীতি ভঙ্গ করলে আপনার জীবনে ভয়ঙ্কর পরিস্থিতির ধারণ করতে পারে।

এটাই সকল ক্ষেত্রে সকল বিষয় নির্ভর করে। তাই আপনি কিভাবে কালোজিরা খাবেন তার সঠিক নিয়ম নীতি ব্যাখ্যা খুব সহজভাবে আপনাদের সামনে উপস্থাপন করলাম।

অর্থাৎ খালি পেটে 1 চা-চামচ কালোজিরা পানির সাথে মিশিয়ে খেলে আপনার দেহের এবং পেটের যত যন্ত্রণাদায়ক ব্যথা আমাশা কৃমি ডায়াবেটিস হাই প্রেসার সকল কিছু সারাদিন আপনাকে নিয়ন্ত্রণে রাখবে।

এবং আপনাকে সতেজ রাখে। এছাড়া আপনি সৃষ্টিকর্তার অমূল্য একটি নিয়ামত মধু আপনি মধুর সাথে কালোজিরা মিশিয়ে সকালে খালি পেটে খেতে পারেন,

এছাড়া ভাত খাওয়ার সময় কালোজিরা ভর্তা তৈরি করে খেতে পারেন। এ ছাড়া তরকারির মাধ্যমে কালোজিরা খেতে পারেন। আরো অন্যান্য গুণাবলী এবং উপকারিতা সম্পর্কে দেখুন।কালোজিরা খাওয়ার নিয়ম

স্মৃতিশক্তি বৃদ্ধি করার প্রধান ঔষধ

স্মৃতিশক্তি মূলত সৃষ্টিকর্তার দান। তবে তিনি আবার স্পষ্ট ভাষায় তার পবিত্র আল-কুরআনে বলে দিয়েছেন, কিভাবে এটিকে ধরে রাখবেন।

এবং বৃদ্ধি করা যাবে, তার একটি মাধ্যম হচ্ছে আপনাকে প্রতিনিয়ত অর্থাৎ প্রতিদিন নিয়মিত ভাবে খালি পেটে কালোজিরা খেলে স্মৃতিশক্তি আপনার বৃদ্ধি পাবে এবং আপনার সমস্ত দেহ অত্যন্ত সতেজ থাকবে।কালোজিরা খাওয়ার নিয়ম

 ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণ

 বর্তমান ডায়াবেটিস শতকরা  80 ভাগ মানুষের মধ্যে অবস্থান করছে। এই রোগটির প্রতিকার সম্পর্কে সারা পৃথিবী ব্যাপী আজও দিনরাত বিশেষজ্ঞদের প্রতিনিয়ত চেষ্টা চলছে।

কিন্তু পরিপূর্ণভাবে এই রোগ থেকে মুক্তি পাওয়া যায় এমন ওষুধ তৈরি হয়নি। কিন্তু দুঃখের কি নির্মম পরিহাস, যে জিনিসটা আমরা হাতের কাছে প্রতিনিয়ত পাই তার মূল্য থাকে না।

আবার যেটা পারি না সেটা হয় অমূল্য সম্পদ। এটি বলার প্রধান কারণ হচ্ছে, আপনি নিয়মিত কালোজিরা পানির সাথে সকালে বাসি পেটে পান করলে এবং  তার সাথে খেলে,

আরও কিছু নিয়ম অনুযায়ী যদি খান আপনার ডায়াবেটিস সম্পূর্ণ নিয়ন্ত্রণে থাকবে। এই কালোজিরা কে কেন্দ্র করে হাজার হাজার চিকিৎসাবিজ্ঞানী এই মানুষদের জন্য অসংখ্য রোগের ঔষধ তৈরি করেছেন অথচ সেগুলো কিনে খেতে হয় বিধায় মানুষ গুরুত্বসহকারে কিনে খায় ।

হার্ট সুস্থ রাখার মহাঔষধ

হার্টের সমস্যা বর্তমানে প্রায় মানুষের এই সমস্যা দেখা দেয়। যা সম্পূর্ণ সুস্থ করার মত কোন ঔষধ চিকিৎসা বিজ্ঞানী আবিষ্কার করতে পারেন নাই। কিন্তু সৃষ্টিকর্তার অশেষ রহমত,

এবং দয়ায় আরো অনেক গুণাবলীর অধিকারী একটি ঔষধি হিসেবে আপনার আমার সামনে প্রতিনিয়ত থাকে। যা আমরা জেনে না জেনে ইচ্ছে করে না ইচ্ছে করে খাই না তাই হচ্ছে কালোজিরা আপনি নিয়মিত খান হানডেট পারসেন আপনার সকল দিক থেকে ভালো থাকবে।

প্রেসার নিয়ন্ত্রণ

 আপনি প্রেসার নিয়ন্ত্রণে রাখতে পারতেছেন না। বেঁচে থাকার তাগিদে প্রতিনিয়তই আমরা এই প্রেশারের এমন কোন ওষুধ নাই যে নিয়মিত খাই না ।অথচ ডাক্তার যখন বলল তখন নিয়মিত ওষুধ খাই।

কিন্তু এরচেয়ে বড় ডাক্তার আমাদের সৃষ্টিকর্তা যেন বারবার স্পষ্ট ভাষায় উল্লেখ করেছেন যে, নিয়মিত আপনি খালি পেটে এবং ভাতের সাথে যেভাবেই খান্না কেন একটু একটু করে কালোজিরা খেলে আপনার পেশা অবশ্যই নিয়ন্ত্রণে থাকবে কিন্তু বিনে পয়সার এই পরামর্শ গ্রহণ করে থাকে।

পেট ফাঁপা

পেট ফাঁপা এই সমস্যাটুকু প্রতিনিয়তই আমরা কেউ না কেউ ফেস করে থাকি। অথচ আমি আপনাকে কথা দিলাম আপনি ঘুম থেকে উঠে এক গ্লাস পানি আর এক চামচ কালো জিরে খান।

আপনি যতদিন বেঁচে থাকবেন নিয়মিত খান কোনদিন আপনার পেট ফাঁপা আপনার পেটে তো দূরের কথা আপনার ধারের কাছেও আসতে পারবে না ইনশাআল্লাহ।

 গ্যাস্ট্রিক, আলসার

বর্তমানে গ্যাস্ট্রিক আলসার খুব কমন একটি রোগ শতকরা 2 একজন মানুষের হয়তোবা নেই। তাছাড়া সকল ক্ষেত্রে এই রোগটি মানুষকে গ্রাস করে ফেলেছে। তার একটাই প্রধান কারণ,

আমরা যদি নিয়মিত সকালে বাসি পেটে পানি এবং তার সাথে একটু কালোজিরা মধু খাই বেঁচে থাকা অবস্থায় গ্যাস্ট্রিক আপনার ধারের কাছেও চাপতে পারবেনা কিন্তু তা কি আপনি কখনো করেন?

 বদহজম

এই রোগটি মানুষের যখন তখন সময়ে অসময়ে আপনি কোন অনুষ্ঠানে অথবা নিজের বাড়িতেই ভালো কিছু খেলে শুরু হয়ে গেল আপনার এই সমস্যা। যার জন্য আমরা কত হাজার ওষুধ।

আর কত ডাক্তারের পরামর্শ নিয়েছি এর চেয়ে বড় ব্যর্থতা পৃথিবীতে আর নাই। আপনার ওষুধ কখনোই লাগবে না আপনি দয়া করে সকালে একটু পরিমাণ কালোজিরা আর পানি বেশি বেশি খান। বাকি জীবনে আপনার বদহজম জিনিস আপনি কখনোই জানবেন না।

খাবার রুচি

 এই সমস্যাটি নাই এখন মানুষ নাই বললেই চলে। অর্থাৎ সকল ডাক্তারের কাছে মানুষের একটি চিরন্তন মুক্তবানি প্রকাশ করে থাকে, খাবার রুচি নেই। ডাক্তার মনে মনে ভেবে থাকে এর মত পাগল দুনিয়ায় আর কেউ নেই।

খাবার রুচির জন্য আপনি যে ওষুধ খাবেন এটা সম্পূর্ণরূপে আপনার জন্য ক্ষতি। যা ডাক্তারের প্রয়োজনে আপনাকে খেতে বলে দোকানদারের ওষুধ বিক্রির প্রয়োজনে আপনার কাছে বিক্রি করে থাকে।

কিন্তু আপনি নিয়মিত কালোজিরা খান আপনার খাবার রুচি কখনোই আপনার নষ্ট হবে না। যা মৃত্যুর আগ পর্যন্ত অটুট থাকবে কিন্তু টাকা ছাড়া পরামর্শ আপনি নিবেন না সমস্যা আমাদের বাঙালির এই প্রধান সমস্যা।

মাথাব্যথা সর্দি এবং জ্বর

এটা আমাদের খুব কমন একটি রোগ। যখন তখন এটি মানুষের হতে থাকে এটা একটাই প্রধান কারণ রোগ-প্রতিরোধক্ষমতা বর্তমানে একজন মানুষের শরীরের নেই বললেই চলে।

আর এই রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধি করার মহৌষধ কালোজিরা ।আপনি নিয়মিত খান কখনোই এসব বিষয় আপনাকে এটা করতে পারবে না এবং হলেও আপনি অনুভব করতে পারবেন না ।

অথচ বর্তমান আমাদের এই রোগটি হলে আমরা এতটাই অস্থির বোধ করি যেন বিছানার সাথে বিভিন্ন রোগে জর্জরিত হয়ে মিশে গেছে তার প্রধান কারণ আমাদের দেহে রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা নেই বললেই চলে।

 রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধি

আপনার দেহের রোগ-প্রতিরোধ ক্ষমতা যদি ভাল থাকে। যেকোনো সমস্যা আপনার দেহে প্রবেশ করাটা অত্যন্ত কঠিন হয়ে যায়। তাই আপনি সর্বপ্রথম আপনার দেহের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধি করেন।

যার প্রধান এবং মূল্যবান মহা ঔষধ কালোজিরা। এটি ছাড়া পৃথিবীর কোন চিকিৎসা বিজ্ঞানী কোনো কিছু তৈরি করতে পারেন  নাই ।

মায়ের বুকের দুধ বৃদ্ধি করার ঔষধ

আজ অব্দি পর্যন্ত পৃথিবীতে যত চিকিৎসাবিজ্ঞানী রয়েছে তারাও ব্যক্তিগতভাবে বিভিন্ন পেশেন্টকে পরামর্শ দিয়ে থাকে, অর্থাৎ যখন একজন মা তার সন্তান পৃথিবীতে জন্মগ্রহণ করেন,

তখন ওই মায়ের বুকের দুধ এর বিকল্প কোনো কিছুই শিশুকে খাওয়ানো হয় না। এটা চিকিৎসাবিজ্ঞানীদের ভাষা কিন্তু বুকের দুধ সৃষ্টিকর্তার দোয়ায় অটোমেটিকলি কিভাবে বৃদ্ধি পাবে কারণ সৃষ্টি কর্তা দিয়েছেন তা হচ্ছে,

কালোজিরা একমাত্র এই কালোজিরা সেবনের মাধ্যমে মায়ের বুকের দুধ বৃদ্ধি পেয়ে থাকে। তাছাড়া সারা পৃথিবীর ডাক্তার আপনি শেষ করে ফেললেও এর বিকল্প কোন কিছুই দেওয়ার ক্ষমতা তার নেই।

পাইলস,  শ্বাসকষ্ট  এবং হাঁপানি

উপরে উল্লেখিত রোগগুলো এখন সবচেয়ে কমন একটি রোগ। প্রায় মানুষের কম বেশী হয়ে থাকে, যার জন্য অনেক বিশেষজ্ঞ ডাক্তারের শরণাপন্ন হয়ে কত শত টাকা আমরা শেষ করে দিয়েছি তার কোনো হিসাব নেই।

অথচ নিজের হাতের কাছে একটি মহা ঔষধ মহান সৃষ্টিকর্তা যেটির মধ্যে দিয়েছেন তার উপর ভরসা করে সঠিক সহি শুদ্ধ নিয়ত করে যদি কালোজিরা আমরা খাই তা হলে এই রোগ গুলি খুব সহজেই সেরে যায়।

 চিকিৎসাবিজ্ঞানে নোবেল পুরস্কার

ইতিহাসের পাতায় আমরা হাজারো চিকিৎসা বিজ্ঞানীর নাম দেখেছি যারা বিভিন্ন বড় বড় আবিষ্কার এর নোবেল পুরস্কার তথা আরো অন্যান্য অমূল্য সম্পদ পুরস্কার গুলি ডাক্তাররা পেয়েছেন।

তারা সৃষ্টিকর্তার এই নিয়ামত কালোজিরা রিসার্চ করে এর গুনাগুন সম্পর্কে সঠিক তথ্য উপস্থাপন করা তাদেরকে নোবেল পুরস্কার দেওয়া হয়েছিল যেটা একজন মানুষ সে রিসার্চ করে এই পুরস্কারগুলো পায় ।

আর আমাদের হাতের কাছে পড়ে থাকা কালোজিরা আমরা কখনই খাইনা। এর ব্যর্থতার দায়ভার কার আপনার-আমার তাইতো আমাদের হাজার ওষুধ খেয়েও রোগ সারানোর বর্তমান কঠিন হয়ে পড়েছে। 

মৃত্যু ছাড়া সকল রোগের মহা ঔষধ

 আজকে আমাদের অন্তরে বিশ্বাস নেই বললেই চলে, যে কোন জিনিসে বিশ্বাস স্থাপন করাটা খুব কঠিন হয়ে গিয়েছে বিধায়, যেকোনো কাজের ফলাফল আমাদের জন্য জিরো হয়ে গেছে।

উপরে উল্লেখিত মহা বাণী চিরন্তন সত্য। অস্বীকার করার কোন উপায় নাই। এই কথাটির সত্যতা যাচাই করে অনেক চিকিৎসা বিজ্ঞানী তারা আজকে তাদের জীবনে সাকসেস অর্জন করেছেন।

সত্যতা যাচাই করে খুঁজে পেয়েছেন এই কালোজিরার গুনাগুন সম্পর্কে। তাই আপনার যত সমস্যায় থাকুক না কেন আপনি নিয়মিত সেবন করুন আল্লাহ যদি রহমত করে আপনার এক সপ্তাহের মধ্যে আপনার সকল সমস্যার সমাধান।

এবং নিয়ন্ত্রণ হতে থাকবে ধীরে ধীরে কিন্তু একদিনে কোন কিছু সম্ভব না ধৈর্য ধারণ করুন এবং সেবন করুন সফলতা আসবে সৃষ্টিকর্তার উপর ভরসা রাখুন নিশ্চিত ইনশাআল্লাহ।

লিভার ও কিডনি সুরক্ষিত রাখে

যেহেতু কালোজিরা পৃথিবীর কোন মানুষ তৈরি করতে পারে নাই। এটি সৃষ্টিকর্তা প্রদত্ত রহমতের এক বিশাল নিয়ামত মানবজাতির জন্য।  সেহেতু এর গুণের কোন শেষ নেই। মানবদেহের সবচাইতে গুরুত্বপূর্ণ অঙ্গ হচ্ছে, লিভার ও কিডনি।

যেখানে  সমস্যা হলে প্রধানত পৃথিবীর সকল চিকিৎসাবিজ্ঞানী বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই ব্যর্থতার পরিচয় দিয়ে থাকে। কিন্তু আপনি যদি আপনার লিভার ও কিডনি সুরক্ষিত রাখতে চান, তাহলে নিয়মিত কালোজিরা খান। যা আপনার লিভার ও কিডনি কে সব সময় সুরক্ষিত রাখবেন এতে কোন সন্দেহ নেই ইনশাল্লাহ। 

ওজন নিয়ন্ত্রণে রাখে

কালোজিরার একটি প্রধান মহাগুন এটি নিয়মিত খেলে যেকোনো মানুষের শারীরিক স্বাভাবিক যে ওজন সেটুকুর মধ্যে অবস্থান করবে। কিন্তু প্রায় ক্ষেত্রেই দেখা যায় অস্বাভাবিক ওজন হয়ে থাকে প্রায় মানুষের ক্ষেত্রে,

বিজ্ঞানীদের এক গবেষণায় বিশেষ জরিপে এসেছে, যারা নিয়মিত কালোজিরা খায় তাদের ওজন সবসময় নিয়ন্ত্রণ এর মধ্যেই থাকে তা কখনোই বাড়ে না।

ত্বকের বিভিন্ন সমস্যা দূর করে থাকে

আমরা প্রতিনিয়ত ত্বকের রূপচর্চার জন্য কত শত টাকা বিভিন্ন পার্লারে বিভিন্ন স্কিন ডাক্তারের কাছে গিয়ে খরচ করে থাকি। কিন্তু নিয়মিতভাবে আপনি কালোজিরার ব্যবহার সঠিকভাবে আপনার ত্বকের জন্য করেন

নিঃসন্দেহে অবশ্যই আপনার ত্বকের সকল সমস্যা দূর হয়ে যাবে। অর্থাৎ যেমনঃ ত্বক উজ্জ্বলতা ফিরে পাবে, ত্বকের কালো দাগ দূর হয়ে যাবে, স্কিনে বয়সের ছাপ পড়বে না ইত্যাদি বিষয়গুলো আপনার সবসময় সতেজ থাকবে। Refarens-sportsnet24

পরিশেষে

এর গুণাবলী সম্পর্কে পৃথিবীর মহা জ্ঞানী মানুষরা শেষ করে যেতে পারে নাই । আপনি আমি কিভাবে পারবো জানিনা তবে শুধু এতোটুকুই বলব আপনার দেহের যত সমস্যা আছে আপনি একটু ধৈর্য্য সহকারে কালোজিরা

এবং এক গ্লাস পানি খালি পেটে খান এবং ভাতের সাথে কালোজিরা খান সকল ক্ষেত্রে আপনার যদি যথেষ্ট উপকার না হয় কথা দিচ্ছি আপনি এই ওয়েবসাইটের মাধ্যমে আমাকে যে শাস্তি দিবে আমি মাথা পেতে নেব কিন্তু নিয়মিত খেতে হবে।

রানী মুখার্জির এর বায়োগ্রাফি, জন্ম, বয়স, ওজন, উচ্চতা, বয়ফ্রেন্ড, পরিবার

মোশারফ করিম এর বায়োগ্রাফি: লাইফ স্টোরি, অর্থ, বয়স, জন্ম, উইকি, ফ্যামিলি এবং স্ত্রী

আ খ ম হাসান বয়স, উচ্চতা, ফ্যামিলি, লাইভ স্টাইল এবং অন্যান্য

হুমাইরা হিমু জীবন বৃত্তান্ত, প্রেমিক, পরিবার উইকি

নোরা ফাতেহি বায়োগ্রাফি,নৃত্যশিল্পী, মডেল, অভিনেত্রী ও গায়িকা 

রজতাভ দত্তের অদ্ভুত জীবন কাহিনী

আফরান নিশো বয়স, উচ্চতা, লাইভ স্টাইল, শিক্ষা, প্রেমিকা, পরিবার এবং অন্যান্য

অভিনেত্রী রিয়া শর্মা এর বায়োগ্রাফি, জন্ম, বয়স, ওজন, উচ্চতা, বয়ফ্রেন্ড, পরিবার

প্রসেনজিৎ চট্টোপাধ্যায় জীবনী, বয়স, লাভার, পরিবার, বেতন এবং ক্যারিয়ার

বিশ্বসেরা অলরাউন্ডার সাকিব আল হাসানের বায়োপিক, জন্ম, বয়স, উচ্চতা, পারিবারিক জীবন, ধন-সম্পদ,ক্রিকেট ক্যারিয়ার  এবং সংক্ষিপ্ত জীবনী

কিলিয়ান এমবাপ্পের জীবনী

আফিফ হোসেন এর বায়োগ্রাফি, জীবনী, জন্ম, বয়স, ওজন, উচ্চতা, বেতন, শিক্ষাগত যোগ্যতা, ক্যারিয়ার, স্ত্রী এবং পরিবার

ক্রিকেটার তামিম ইকবালের ব্যক্তিগত জীবন, ক্যারিয়ার, বয়স, উচ্চতা, জন্ম এবং বৈবাহিক জীবন

রতন টাটার জীবনী এবং কিভাবে কর্মচারী থেকে টাটা কোম্পানির মালিক 

বিরাট কোহলির জীবনী, বয়স, উচ্চতা,প্রেমিকা,পরিবার, স্ত্রী, সন্তান,রেকর্ড এবং ধন-সম্পদ

সাদিও মানে ইতিহাস সেরা অদ্ভুত জীবনী 

রশিদ খান এর ইতিহাস সেরা জীবনী

মোহাম্মদ রিজওয়ান এর জীবনী 

লিওলেন মেসির কৈশোর ,শৈশব, ফুটবল  জীবন এবং পরিবার

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *