ব্লগিং এর মাধ্যমে সর্বোচ্চ আয়, পড়ুন 100% সফলতা আসবে

Contents hide
ব্লগ হল এক ধরনের অনলাইন ব্যক্তিগত দিনলিপি বা ব্যক্তিকেন্দ্রিক পত্রিকা। ব্লগ শব্দটি ওয়েবব্লগের সংক্ষিপ্ত রূপ। যিনি ব্লগে পোস্ট করেন তাকে ব্লগার বলা হয়।
ব্লগাররা প্রতিনিয়ত তাদের ওয়েবসাইটে কনটেন্ট যুক্ত করেন আর ব্যবহারকারীরা সেখানে তাদের মন্তব্য করতে পারেন। এছাড়াও সাম্প্রতিক কালে ব্লগ ফ্রিলান্স সাংবাদিকতার একটা মাধ্যম হয়ে উঠছে। সাম্প্রতিক ঘটনাসমূহ নিয়ে এক বা একাধিক ব্লগাররা তাদের ব্লগ হালনাগাদ করেন।

ব্লগিং শব্দটি ব্লগ থেকে এসেছে।অর্থাৎ বর্তমান তথ্যপ্রযুক্তির এই যুগে আপনি ব্লগিং করি সর্বোচ্চ ইনকাম করতে পারেন অনায়াসে। সে ক্ষেত্রে আপনাকে অবশ্যই গুগলের গুরুত্বপূর্ণ কিছু নিয়ম-নীতি ফলো করে আপনাকে ব্লগিংয়ের মাধ্যমে সর্বোচ্চ ইনকাম করতে হবে।

আমি আপনাকে অন্য অন্য পোস্টের তুলনায় সকল নিয়ম নীতি অনুসরণ করতে এবং তা গুরুত্ব সহকারে মনোযোগ সহকারে দেখতে বিশেষভাবে অনুরোধ করবো না। কারণ আপনি আপনার ব্লগ সাইট থেকে কিভাবে সর্বোচ্চ সফলতা অর্জন করবেন।

তার সুনির্দিষ্ট দিক-নির্দেশনা আপনি গুগলের মধ্যে সকল তথ্য পাবেন। সেখান থেকে আপনি সংগ্রহ করে আপনার মেমোরিতে সাজিয়ে নিজের মত করে মানসম্মত শব্দ ব্যবহার করে আপনি ব্লগিং করতে পারেন।ব্লগিং করে আপনি সর্বোচ্চ ইনকাম করবেন কিভাবে,

আরেকটি সহজ সূত্র আপনাকে আমি দিয়ে দিলাম। যা ব্যবহার করে আপনার ১০০% সফলতা আপনি অর্জন করতে পারবেন ইনশাআল্লাহ । গুগোল হচ্ছে এমন একটি বিষয় যেখানে কোন ধরনের অসদুপায় অবলম্বন করা মিথ্যা বিষয়ে কোন কিছু প্রকাশ করা,

মূল্যহীন কথা উপস্থাপন করে আপনার ব্লগ সাইট পূর্ণ করে তোলা ইত্যাদি বিষয়গুলো গুগোল কখনোই তা সমর্থন করেনা। তাই আপনি যেহেতু তথ্যগুলো প্রথমে গুগলের মাধ্যমে প্রকাশ করবেন এবং আপনার ইনকাম এর প্রধান মাধ্যম হচ্ছে গুগল।

তাই আপনি গুগলের সকল নিয়ম নীতি অনুসরণ করে হাই কোয়ালিটি কন্তেন্ট পাবলিশ করেন। অটোমেটিকলি আপনার ব্লগ সাইট অনেক ভালো অবস্থান করবে এবং অটোমেটিকলি আপনি ভিজিটর পাবেন এবং সেখান থেকেই আপনি সর্বোচ্চ ইনকামটা গ্রহণ করতে পারবেন।

ইতিহাস
১৯৯৭ এর ১৭ ডিসেম্বর, “জর্ন বার্গার” নামক এক ব্যক্তি সর্বপ্রথম ‘ওয়েবলগ’ শব্দটির উদ্ভাবন করেন। পরবর্তীতে, ‘পিটার মেরহোলজ’ তার নিজস্ব ব্লগ পিটার্ম ডট কমে কৌতুক করে ‘ওয়েবলগ’ শব্দটিকে ভাগ করে ‘ব্লগ’ বলে সম্বোধন করেন ১৯৯৯ এর এপ্রিল বা মার্চের দিকে। তারপর থেকে ‘ব্লগ’ শব্দটির ব্যবহার বাড়তে থাকে। 
ব্লগিং কেন করবেন?
ব্লগ বা ব্লগিং শব্দটি শুনে নাই এমন লোকের সংখ্যা তুলনামূলক ভাবে অনেক কম বলে আমি বিশ্বাস করি। উন্নত দেশ গুলোতে ব্লগিং খুব জনপ্রিয় একটা পেশা। ব্লগিং নিয়ে লেখাপড়া করে এবং ইনকাম করে। প্রায় সব শ্রেণীর পেশার মানুষ উন্নত দেশগুলোতে ব্লগিং এর সাথে জড়িত।
আবার কেউ প্রধান ইনকাম সোর্স হিসেবে জীবন যাপন করে। তবে এই ব্লগিং নিয়ে বাংলাদেশে কিছু বিরূপ প্রতিক্রিয়া আছে। অনেকে আবার ব্লগ বা ব্লগিং সম্পর্কে তেমন কিছু জানেও না। আমি চেষ্টা করবো সবার জন্য ব্লগিং নিয়ে বিস্তারিত আলোচনা করার।
ব্লগার কে বা কারা ?
যারা ব্লগিং করে বা যারা ইন্টারনেটে বিভিন্ন ওয়েভ সাইটগুলোতে লেখালেখি করে এবং এই ব্লগ গুলো যারা বানায় তারাই হচ্ছে ব্লগার অর্থাৎ আমি একটু পরিস্কার করি, যিনি ব্লগ তৈরী করে ব্লগে পোস্ট করেন বা বিভিন্ন লেখা লিখি করেন তাদেরকেই বলা হয় ব্লগার।
ব্লগিং করার কারণ:
অনেক ব্লগার আছে যারা সামাজিক সম্মানের জন্য বা যোগাযোগের জন্য ব্লগিং করে থাকে। তবে বর্তমানে গুগল আডসেন্সের কারণে ৮০% ব্লগার তাদের ব্লগ থেকে ইনকামের জন্য তৈরি করে।
বর্তমানে ব্লগিং এর মাধ্যমে অনলাইনে আয় করা সম্ভব, বিশেষ করে গুগল এডসেন্স এর মাধ্যমে ব্লগিং করে বিভিন্ন বিষয়ে আর্টিকেল লিখে ইনকাম করছে কিন্তু এই আয় এর পিছনে তাদের রয়েছে মহান ইচ্ছাশক্তি এবং পরিশ্রম।
ব্লগিং করে কি হবে :
এছাড়া ভার্চুয়াল জগতে আপনার নাম হবে যা আপনি পরিচিতি সুনাম বৃদ্ধি পেতে পারে। আবার আপনার ব্লগ যদি নামকার হয়ে উঠে তাহলে বিভিন্ন কোম্পানির ( ক্লিকবিডি, এখনি.কম, আজকেরডিল.কম ইত্যাদি) এডস আপনার ব্লগে দিয়ে প্রতিমাসে মুটামুটি কিছু টাকা আয় করতে পারবেন। এছারাও বিভিন্ন এডস কোম্পানিতো (গুগল এ্যাডসেন্স, ইনফোলিঙ্কস, ক্লিকসোর) আছেই। আসলে বাংলা ব্লগের মাধ্যমে আয় করা একটু কঠিন।
আর আপনি যদি ইংরেজীতে ব্লগিং করেন তাহলে ভাল লেখক হওয়া থেকে শুরু করে সুনাম এবং আয়ের রয়েছে ব্যাপক সম্ভাবনা। এখানে আপনি বিভিন্ন বিষয়ের উপর ব্লগ লিখে বাহারি পণ্যের বিজ্ঞাপন ( আপনার ব্লগ যদি নামকরা ব্লগ ও সনামধন্য হয়) এবং বিভিন্ন নামকরা অনলাইন এডস কোম্পানির (গুগল এ্যাডসেন্স, ইনফোলিঙ্কস, ক্লিকসোর) পাবলিশের মাধ্যমে প্রচুর টাকা আয় করতে পারেন। এছাড়াও আছে এফিলিয়েশনের মাধ্যমে আয় । তাছাড়া অনলাইনের জনপ্রিয়তার সাথে সাথে মানুষ ব্লগিং এ খুব বেশি ঝুকে পড়ছে।
পরিশেষে, ব্লগিং একটি শক্তিশালী মিডিয়া বা গণমাধ্যম এর সাহায্যে অনেক অসম্ভবকে সম্ভব করা যায়। ব্লগিং এর ফলে প্রত্যেক দেশের সামাজিক, অর্থনৈতিক এবং রাজনৈতিক বিভিন্ন ব্যাপারে অভাবনীয় পরিবর্তন আসছে। এর সঠিক প্রয়োগে আমাদের সকলের জন্য সুফল বয়ে আনবে ।

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *