অবাক কান্ড অবাক পৃথিবী 

অবাক কান্ড অবাক পৃথিবী 

বর্তমানে তথ্যপ্রযুক্তির এই যুগে পৃথিবীতে কতঘটনায়ই না ঘটছে । যা আমরা কখনো বাস্তবে তো দূরের কথা কখনো কল্পনাও করতে পারিনা। তারই ধারাবাহিকতায় আজকে বিশ্বায়নের প্রযুক্তিতে এমন এক  ব্যক্তি র সম্পর্কে জানব যিনি আমেরিকার মত একটি উন্নত রাষ্ট্রে সুপ্রতিষ্ঠিত এবং সুপরিচিত একজন নামকরা ধনী ব্যক্তি ছিলেন ।

এমনকি ওই দেশে সেরা 10 ধনী ব্যক্তিদের মধ্যে তিনিও একজন ছিলেন ।তার প্রধান ব্যবসা ছিল আমেরিকা শেয়ারবাজারে ব্যবসা। ওই ব্যবসা করে উনি সফল একজন ব্যবসায়ী হিসেবে সারা পৃথিবীতে সুনাম অর্জন . করেছিলেন।

একদিন হঠাৎ এক মিডিয়ার সাংবাদিক ফুটপাতের রাস্তা দিয়ে হাটতেছিল হঠাৎ করে তার চোখ চলে যায় সেই ফুটপাতের রাস্তার পাশে খাবারের বক্স মাথায় দিয়ে শুয়ে আছেন এই সেই ব্যক্তি যিনি তার জীবনে সবচাইতে দামি ব্রান্ডের বিলাসবহুল গাড়ি বাড়ি নারী শেয়ার ব্যবসা সবকিছু সফলতার মধ্য দিয়ে হাটতে ছিলেন ।

ওই ব্যক্তিকে সাংবাদিক প্রশ্ন করলেন স্যার আপনি সেই ব্যক্তি না যিনি সবচাইতে সফলতা অর্জন করেছিলেন তার শেয়ার ব্যবসায় পক্ষান্তরে উনি বললেন আমি সেই ব্যক্তি সাংবাদিক কথা শুনে রীতিমত অবাক হয়ে বললেন স্যার আপনার এই অবস্থা কিভাবে হল তখন উনি সাংবাদিক কে বলেছিলেন বাস্তবতার নিরিখে আজকে আমি এখানে। 

সবচাইতে অবাক করার বিষয় ছিল যে তিনি তার ব্যবহারের বিলাসবহুল যে ব্র্যান্ডের গাড়ি মার্কেটে প্রথম আসত সেই গাড়ি উনি সর্বোচ্চ দামে ক্রয় করে ব্যবহার করতেন ।

তার জীবনে ওই  মুহূর্তগুলোতে  একে একে সকল সফলতা আসতে শুরু করলো। ঠিক এই মুহূর্ত থেকে তিনি তার জীবন চলার পথে সবচাইতে আনন্দ উল্লাস করে তার সময় কাটতো।

তারপর থেকে তার জীবনে শুরু হলো চরম এক বাস্তবতা যে বাস্তবতা স্রোতে তিনি নিজেকে হারিয়ে ফেলে সেই বাস্তবতা হচ্ছে তার জীবনে সবচাইতে ভয়ঙ্কর তিনটি নেশা তাকে ঘিরে বসে। যে তিনটি নেশা একটিও যদি কারো মাঝে থাকে তবে তার জীবনে নেমে আসে ভয়ঙ্কর অন্ধকার কাল রাত্রি।

সুতরাং এই তিনটি নেশা হচ্ছে মদ জুয়া ও নারী লোভে আকৃষ্ট হয় জীবনের যত উপার্জন থাকে সমস্ত উপার্জন এক নিমিষেই ধ্বংস হয়ে যায় ধ্বংস হয় তার পরিবার পরিজন আত্মীয়-স্বজন বন্ধুবান্ধব এমনকি  নিজেও।

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *